মঙ্গলবার, ৭ আগস্ট, ২০১৮

চা বাগানে ধর্মঘট ~ আর্কাদি গাইদার

বীরপাড়া টি এস্টেট: ৩২(৪৭)
গাংগুরাম টি এস্টেট: ২৩(৪৮)
ডিমডিমা টি এস্টেট: ৩৩(৫১)
মধু টী গার্ডেন: ৩৪(৫০)
রেড ব্যাংক টি গার্ডেন: ৩০(৫২)

প্রথম সংখ্যাটা হলো এই বাগানগুলোতে অভুক্ত থেকে অপুষ্টিতে কতজন চা শ্রমিক মারা গেছেন। ব্র‍্যাকেটে গড় বয়স। এগুলো স্রেফ কয়েকটা বাগানের হিসেব। 

২৭৩ - এটা হলো উত্তরবাংলার টি এস্টেটের সংখ্যা।

৩৫১ - মূখ্যমন্ত্রী যে হুংকার দিয়েছেন উনি এক্ষুনি আসামে চলে যাবেন বাঙালীদের রক্ষা করতে, এই সংখ্যাটা সেই আসামের চা বাগানের নির্ধারিত দৈনিক মজুরী।

১৫৯ - এই সংখ্যাটা রাজ্যের একজন  চা শ্রমিকের দৈনিক মজুরী।

১৭২ - লাগাতার আন্দোলনের পর রাজ্য সরকার মধ্যস্থতা করে এই সংখ্যাটা দৈনিক মজুরী নির্ধারিত করেছে।

২৩৯ - শ্রমিকরা যে দৈনিক মজুরীর দাবিতে আন্দোলন করছে।

২৪,০০,০০,০০০ - চা শ্রমিকদের ন্যায্য প্রফিডেন্ট ফান্ডের মূল্য যা সামগ্রিক ভাবে ৫৫ টা চা বাগানের মালিকরা ফাঁকি দিয়েছে।

২০১৬ - এটা হলো সেই সাল যবে থেকে সমস্ত চা বাগানে সরকারি রেশন ব্যাবস্থা বন্ধ।

৪ - এটা হলো তত বছরের সংখ্যা যত বছর ধরে বাগানগুলোয় গ্র‍্যাচুইটি বন্ধ।

৪ - এটা হলো উত্তরবাংলার সমস্ত চা বাগানের থেকে ধর্মঘটে সামিল হওয়া শ্রমিকদের লাখে সংখ্যা।

১৩ -  সরকার এত টাকা দৈনিক মজুরী বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে।

 ৮৫০০ - মূখ্যমন্ত্রীর পুরনো মাইনে।

২৭,০০১ - বিধানসভায় বিল পাশ করিয়ে মাইনে বাড়ানোর পরে মূখ্যমন্ত্রীর নতুন মাইনে।

০ - এখনো অবধি টিভি চ্যানেলে এত মিনিটের কভারেজ দেওয়া হয়েছে এই ধর্মঘটকে।

০ - এখনো অবধি চা শ্রমিকদের নিয়ে কলকাতায় বিকেলের চায়ে চুমুক দিতে দিতে এত মিনিট কেউ মাথা ঘামিয়েছেন।