মঙ্গলবার, ৩০ জানুয়ারী, ২০১৮

DA: দয়া না দায় ~ দেবযানী ভট্টাচার্য্য

বহুদিন ধরে সরকারি কর্মচারীদের DA নিয়ে রাজ্যে বিতর্ক চলছে। রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের DA বাকি আছে, মুখ্যমন্ত্রী দিতে রাজি নন। বর্তমানে মামলা হাইকোর্টে। কোর্টে রাজ্যের হয়ে রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল declare করেছেন যে সরকারি কর্মীদের DA নাকি কিছু বাকি নেই। অথচ এতদিন ধরে প্রচুর দাবী উঠেছে এবং দাবী রয়েছে যে DA বাকি আছে। তাহলে সত্যিটা কি? কৌতূহলের বশেই জানবার চেষ্টা করেছিলাম। আপনাদের সাথেও share করতে চাই। এটি রীতিমত একটি ছোটখাটো গবেষণা, তথ্য সংগ্রহ করেছি বিভিন্ন সরকারি সাইট থেকে যেগুলোর লিঙ্ক লেখার শেষে দেওয়া আছে। পুরোটা পড়লে বোঝা যাবে DA নিয়ে এই ডামাডোলের কারণ কি এবং তা কতটা যুক্তিসঙ্গত বা আদৌ যুক্তিসঙ্গত কিনা। 

প্রথমেই জানতে হবে, DA কি এবং কেন?

DA বা Dearness Allowance হল মহার্ঘ্যভাতা। ধরা যাক আমার মাইনে আজ ১০০ টাকা। আজকের বাজারমূল্যের নিরিখে এই ১০০ টাকায় আমার সংসার চলে। কিন্তু আগামী বছর যদি Price Index বা মূল্যসূচক বদলে যায়, জিনিসপত্রের দাম বাড়ে, তখন জীবনযাত্রার মান exactly এক রেখে চললেও ১০০ টাকা আমার সংসারে কম পড়বে। অর্থাৎ জিনিসপত্রের দাম বাড়ার পরেও যদি আমার মাইনে ১০০ টাকাতেই আটকে থাকে, তখন আমার মাইনে virtually কমে যাবে। মূল্যবৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সরকারি কর্মীদের মাইনে যাতে effectively কমে না যায়, সেটা ensure করার জন্যই সরকারি কর্মীরা পান মহার্ঘ্যভাতা। অর্থাৎ জিনিসপত্র মহার্ঘ্য হওয়ার ফলে যে ভাতা তাঁদেরকে দেওয়া হয়, তা-ই হল মহার্ঘ্যভাতা। 

প্রশ্ন হল, সরকারি কর্মীরা DA পাবেন কেন? বেসরকারি কর্মীরা তো পান না। জিনিসের দাম বাড়লে অসুবিধা তো সবারই হয়। 

এর যুক্তিসঙ্গত উত্তর হল, employer যখন খোদ সরকার এবং জিনিসপত্রের দামের ওঠাপড়ার দায়ও যেহেতু সরকারের এবং যে বাজারে জিনিসের দাম সরকারি নীতির direct outcome হিসেবে বাড়ে সেই বাজার থেকেই জিনিসপত্র কিনতে যেহেতু সরকারি কর্মচারীরা বাধ্য, সেইজন্যই তাঁদের মাইনের buying power বা ক্রয়ক্ষমতা যাতে অপরিবর্তিত থাকে সেটা সুনিশ্চিত করার জন্য সরকারি কর্মীদের DA দেওয়া সরকারের ন্যায্য দায়িত্ব ও নিয়ম। DA দেওয়া মানে  সরকারি কর্মীদের মাইনে বাড়ানো নয়, বরং মাইনের কমে যাওয়াকে রোধ করা।

তাহলে বেসরকারি কর্মীদের কি হবে? তাঁরা তো DA পান না। 

বেসরকারি কর্মীদের ক্ষেত্রেও annual appraisal এর basis এ increment হয়। 

তবে কি সরকারি কর্মচারীরা increment পান না? যতদূর জানি, সেও তাঁরা পেয়ে থাকেন। তাহলে আলাদা করে মহার্ঘ্যভাতা দেওয়ার প্রয়োজনটা কি? 

আসলে বাৎসরিক increment এর তাৎপর্য সরকারি এবং বেসরকারি sector এ আলাদা। সরকারি চাকরিতে increment হল শুধুমাত্র অভিজ্ঞতার দাম। তাই তা ন্যূনতম থাকে এবং তার সঙ্গে মূল্যবৃদ্ধির কোনো সম্পর্ক থাকে না। অর্থাৎ নতুন চাকরিতে ঢোকা একজন অনভিজ্ঞ কর্মচারীর চেয়ে পাঁচ বছরের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন একজন কর্মচারীর সেই পাঁচ বছরের অভিজ্ঞতার মূল্য হিসেবে পাঁচটি increment পাওনা হয়। কিন্তু সেই পাঁচ বছর আগে ঢোকা একজন নতুন অনভিজ্ঞ কর্মচারী যে basic pay তে চাকরিতে join করেন, তার পাঁচ বছর পরে যদি সেরকমই নতুন অনভিজ্ঞ কেউ সেই একই চাকরিতে join করতে আসেন, তবে তাঁকেও সেই একই পাঁচ বছরের পুরোনো basic pay তে চাকরিতে join করতে হয়। ইতিমধ্যে এই পাঁচ বছরে বাজারে মূল্যবৃদ্ধি যাই ঘটে থাকুক না কেন, এই initial joining time basic pay তে কোনো পরিবর্তন ঘটে না। 

বেসরকারি ক্ষেত্রে কিন্তু তা হয় না। বেসরকারি ক্ষেত্রে পাঁচ বছর আগে যে মাইনেতে একজন নতুন অনভিজ্ঞ কর্মচারীকে চাকরিতে নেওয়া হয়, পাঁচ বছর পরে সেই একই চাকরিতে একই যোগ্যতাসম্পন্ন কাউকে নিতে গেলে সাধারণতঃ কোম্পানীরা বেশি মাইনে অফার করতে বাধ্য হন। 

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের চাকরিতে কোনো ব্যক্তি ২০০৯ সালে কোনো বিশেষ পদে Join করবার সময় যে initial basic pay তে join করেছিলেন, আজ ২০১৮ সালে সেই একই পদে join করতে গেলে একই রকম যোগ্যতাসম্পন্ন কোনো ব্যক্তির initial basic pay একই হয়। কিন্তু এই ন'বছরে বাজারমূল্য তো এক জায়গায় থেমে নেই। ২০০৯ সালের সেই initial basic pay র যা ক্রয়ক্ষমতা ছিল, আজ ২০১৮ সালে সমান basic pay র ক্রয়ক্ষমতা অনেক কম। এই ব্যবধানকে পূরণ করতে বেসরকারি কোম্পানীগুলি ২০০৯ সালে কোনো পদে কর্মচারী নিয়োগ করতে গিয়ে যে initial বেতন অফার করত, আজ সেই একই চাকরিতে একই যোগ্যতাসম্পন্ন লোক নিয়োগ করতে গিয়ে অনেক বেশি initial বেতন অফার করে। সরকারি চাকরিতে যেহেতু বেশি initial basic pay অফার করার কোনো উপায় নেই, তাই সেই initial basic pay র বাস্তব মূল্যহ্রাস রোধ করতে এবং বাজার মূল্যের ব্যবধান পূরণ করতে যে বাড়তি টাকা allowance হিসেবে দেওয়া হয়, তাকেই বলা হয় মহার্ঘ্যভাতা বা DA. 

এর মানে দাঁড়ালো এই যে আসলে বেসরকারি কর্মীরাও DA পান কিন্তু যেহেতু সেই টাকাটা প্রতি নিয়ত মূল বেতনের সঙ্গে জুড়ে যেতে থাকে আর তাকে আলাদা করে রেখে আলাদা নামে ডাকা হয় না, তাই আমাদের মনে হয় যেন তাঁরা মহার্ঘ্যভাতা পান না। বাস্তবে বেসরকারি কর্মচারীদের ক্ষেত্রে প্রতি নিয়ত যে ঘটনা ঘটতে থাকে অর্থাৎ মূল বেতনের সঙ্গে মহার্ঘ্যভাতার মিশে যাওয়া, সরকারি কর্মচারীদের ক্ষেত্রে তা-ই ঘটে দশ বারো বছর পর পর যখন বেতন কমিশনের রিপোর্ট কার্যকর করা হয়। তাই এ ব্যাপারে বলাই যায় যে বেতন পুনর্বিন্যাসের ব্যাপারে বেসরকারি ক্ষেত্রের কর্মচারীরা সরকারি কর্মচারীদের চেয়ে অনেক এগিয়ে এবং তাদের মধ্যে তুলনা করার চেষ্টা করা বৃথা। 

আর তাছাড়াও মূল্যবৃদ্ধি হওয়ার পিছনে বেসরকারি কোম্পানীর যেহেতু কোনো হাত নেই, তাই বেসরকারি এমপ্লয়াররা মূল্যবৃদ্ধির compensation তাদের কর্মচারীদের দিতে বাধ্য থাকেন না। তা সত্ত্বেও অধিকাংশ বেসরকারি কোম্পানীই প্রতি বছর তাদের কর্মচারীদের pay revision করে থাকেন। আর সরকারি কর্মচারীদের employer যেহেতু সরকার নিজে, এবং মূল্যবৃদ্ধির দায়ও যেহেতু সরকারের, তাই সরকারকে DA দিতে হয়। 

অর্থাৎ DA মানে মাইনে বাড়ানো নয়, মাইনে কমে যাওয়া আটকানো।

অর্থাৎ এই মুহূর্তে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কর্মচারীদের মাইনে কমে গিয়েছে। আইনতঃ যে কাজের জন্য যে মাইনে পাওয়ার প্রতিশ্রুতি স্বয়ং রাজ্যপালের কাছ থেকে অ্যাপয়েন্টমেন্ট লেটারের মাধ্যমে পেয়ে তাঁরা চাকরিতে ঢুকেছিলেন, এই মুহূর্তে সেই একই কাজ করার জন্য তাঁদের বহু কম মাইনেতে কাজ করতে হচ্ছে। অর্থাৎ তাঁরা সঠিক মাইনে পাচ্ছেন না। এক্ষেত্রেও আইন অমান্য করছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার তার কর্মচারীদের বঞ্চিত করে। 

আমাদের অর্থাৎ সাধারণ মানুষের ধারনা সরকারি কর্মচারীদের সময়ে সময়ে মাইনে বাড়ে। বাস্তবটা আদৌ তা নয়। আর সাধারণ মানুষের এই ভুল ধারনার কারণেই সরকার তার কর্মীদের DA না দেওয়ায় আমাদের তত কিছু যায় আসে না, বরং আমরা যেন কিছুটা খুশিই। বোধ হয় ঈর্ষার কারণে। আর সাধারণ মানুষের এই ভ্রান্তিই সম্ভবতঃ মুখ্যমন্ত্রীরও আছে। কারণ এই ধরনের বিষয়ে, যেমন অর্থনৈতিক ও আইনগত বিষয়ে ওঁর understanding একেবারেই সাধারণ মানুষের মত। কেবলমাত্র ভোটের রাজনীতির বিষয়ে, ওঁর বোঝার ক্ষমতা outstanding, অতুলনীয়। 

কারুর মনে হতে পারে, যে রাজ্য অর্থকষ্টে ভুগছে, তার সরকার কর্মচারীদের মাইনে দেবে কি করে? কিন্তু ভালো করে ভেবে দেখতে হবে যে এমনটা আদৌ হয় কিনা। কোনো কোম্পানী যদি অর্থকষ্টে থাকে, তবে তার কর্মচারীদের বোনাস না-ও মিলতে পারে, কিন্তু মাইনেতে হাত পড়ে কি?কোনো কোম্পানীর যখন কর্মীদের মাইনে দেওয়ার সংস্থান থাকে না, তখন বোঝা যায় যে সে কোম্পানীর রোজগার নেই, কোম্পানী লাটে ওঠার মুখে। তবে কি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের আর্থিক দৈন্য এমনই যে প্রায় লাটে উঠতে চলেছে? এমন আশঙ্কা আগে একাধিকবার প্রকাশ করেছি যে পশ্চিমবঙ্গ সরকার সম্ভবতঃ financial emergency র দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। যে কোনো দিন money bill fail করবে এবং সেই দিন রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করা সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা। কিন্তু সে আলাদা প্রশ্ন।

পশ্চিমবঙ্গ সরকার যদি কর্মচারীদের ব্যয়ভার বহন করতে না পারে, তাহলে কর্মীসংকোচন করার জন্য ভলান্টারি রিটায়ারমেন্ট স্কীম অফার করতে পারে। সরকারী কর্মচারীদের মধ্যে এমন বহু মানুষ আছেন যাঁরা নতুন কোনো attractive VR scheme এর অপেক্ষা না রেখেই VR নিতে  চান। কিন্তু যতদূর জানি, পশ্চিমবঙ্গ সরকার আজকাল VR allow করে না। সম্ভবতঃ VR নিলে কর্মীর সমস্ত পাওনাগণ্ডা অবিলম্বে চুকিয়ে দিতে গেলে যে আর্থিক সংস্থান প্রয়োজন, পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তা-ও নেই। একজন, দু'জনকে VR allow করতে হয়ত সরকার পারে, কিন্তু বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের যা অবস্থা, তাতে একজনকে Allow করলে পর পর এত কর্মী VR নিতে চাইবেন যে সবার claim settle করার সংস্থান Government এর নেই। স্বাস্থ্যদপ্তরে ডাক্তারদের VR allow করা হয় না বরং তাঁদের retirement age extend করা হয়েছে। অন্যান্য নানা দপ্তরেও এমন অনেকে আছেন যাঁরা চাকরি করতে চাইছেন না, কিন্তু তাঁদের ছাড়বার উপায় নেই। 

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উচিত attractive VR scheme ঘোষণা করা। বহু কর্মী এক সাথে retirement নিয়ে নেবেন এবং এককালীন তাঁদের claim settle করে দিলে সরকারের মাইনে বাবদ recurring cost এক ধাক্কায় অনেকখানি কমবে। অর্থকষ্টে ভুগতে থাকা একটা রাজ্যের জন্য এটি একটি দাওয়াই হতে পারে। 

কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ সরকার কি তা করবে? তা করলে সরাসরি প্রমাণিত হবে যে সরকারের পক্ষে কর্মসংস্থান করা এমনকি খোদ সরকারি সেক্টরেও সম্ভব হচ্ছে না। 

কিন্তু কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা অন্য আর একভাবেও করা যেতে পারে এবং  মমতাদেবী হয়ত সেরকম ভেবেও দেখেছিলেন। ক্যাজুয়াল ভিত্তিতে নামেমাত্র মাইনে দিয়ে নিয়োগ করে। আসলে সরকারি কর্মচারীরা ঠিক কি কাজ করেন, সেগুলো না করলে ক্ষতি কি, তা সম্ভবতঃ মমতাদেবী বোঝেন না। সেই জন্য কর্মচারীদের মাইনে ওঁর কাছে বিশাল বোঝা। ওঁর হয়ত মনে হয়, রাজ্য চালানোর কাজ তো পার্টির লোকেদের দিয়েই সম্ভব। সিদ্ধান্ত নেবেন মমতাদেবী নিজে আর তা রূপায়ন করবে ওঁর অনুগামীরা। যেমন সাম্প্রতিক অতীতে উনি এই দায়িত্ব দিতে চেয়েছেন পাড়ার ছেলেদেরকে। সরকারী কর্মচারীদের প্রয়োজন কি? বরং যে কর্মচারীকে মাস গেলে ২৫,০০০ টাকা দিতে হয়, সেই টাকায় পাঁচটা পাড়ার ছেলের ক্যাজুয়াল মাসমাইনে হয়ে যেতে পারে। আমার মনে হয় মমতাদেবী হয়ত সত্যি সত্যিই সরকারী অফিসগুলোকে একেবারে উঠিয়ে দেওয়ার কথাও সিরিয়াসলি ভেবে দেখেছেন। বেশ জনমোহিনী সিদ্ধান্ত হত সেটা। যাঁরা মনে করেন সরকারি কর্মচারীরা কাজের কাজ কিছু করেন না, তাঁরাও খুশি হতেন আর তাদের মুখ্য প্রতিনিধিও!

কিন্তু বাস্তবে যে সরকারি কর্মচারী ব্যতীত সরকারচালনা সম্ভব নয়, সেটা মমতাদেবী নিশ্চয় জানতে পেরেছেন। কিন্তু মানতে পারেন নি। ওঁর অসন্তোষও সেখানেই। কেন উনি নিজের ইচ্ছে মত যা খুশী সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন না? কেন কোর্ট intervene করে? কেন পশ্চিমবঙ্গ সরকার কোর্টে কেস হারে (সেই মর্মে উনি আইনমন্ত্রী ও সচিবকে বকাঝকাও করেছেন বলে খবরে প্রকাশ)? কেন এত কেস হয় পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিরুদ্ধে? নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির ইচ্ছার উপর কথা বলার কোর্ট কে?

সাংবিধানিক সংসদীয় গণতন্ত্রের সঙ্গে সামন্ততান্ত্রিক রাজতন্ত্রের তফাৎ মমতাদেবীকে বড়ই পীড়া দেয়। সেই কারণেই সম্ভবতঃ সরকারী কর্মচারীদের উপর ওঁর রাগ। ওঁরা ওঁদের ন্যায্য মাইনে দাবী করলেও উনি বলছেন 'ঘেউ ঘেউ করবেন না'। কর্মচারীদের সঙ্গত দাবী ওঁর কাছে কুকুরের ঘেউ ঘেউয়ের মতই বেসুরো ও বিরক্তিকর ঠেকে। 

আরও আছে কিছু অস্বস্তিকর সংবাদ। সরকারি কিছু কিছু দপ্তরে, যেমন স্বাস্থ্যদপ্তরে, কর্মীদের উপর এমন চাপাচাপি চলে যে অনেক ডাক্তার, কর্মচারীই সেখানে depression এ ভুগছেন। কিছু নির্দিষ্ট IAS ও WBCS অফিসাররা এক্ষেত্রে instrumental. অন্যায্য চাপাচাপি এবং heckle করার কাজটা 'স্বাস্থ্যভবন' থেকে তাঁরা করেন এবং মুখ্যমন্ত্রীর good book এ থাকেন। 

ন্যায্য মাইনের অভাব এবং তার উপর চাপাচাপির দ্বারা বহু কর্মীকে পরোক্ষে lead করা হচ্ছে যাতে তাঁরা চাকরিতে resignation দিয়ে দেন। অনেকেরই হয়ত জানা থাকবে যে সরকারি চাকরিতে স্বেচ্ছায় ইস্তফা দিলে কেবলমাত্র প্রভিডেন্ড ফাণ্ড ছাড়া অন্য কোনো dues দেওয়ার দায় সরকারের থাকে না কিন্তু কর্মী যদি retire করেন, এমনকি তা voluntary retirement হলেও, তবে তাঁর সমস্ত dues মেটাতে সরকার বাধ্য। তাই কর্মীরা frustrated হয়ে গিয়ে যদি resign করেন, তাহলে কিছু পাওনা মেটানোর দায়ভার থেকে মুক্ত হতে পারে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। সরকারি অলিন্দে কান পাতলে এসব কথা আজকাল হাওয়ায় ভাসে। 

জুনিয়র ডাক্তারদের উপর শর্ত হল পাশ করার পর তিন বছরের জন্য গ্রামীন duty তে যেতেই হবে। নয়ত দশ লাখ টাকা খেসারত দিলে সেই শর্ত থেকে মুক্তি মিলবে। জুনিয়র ডাক্তাররা প্রায় সবাই যে কোনো উপায়ে দশ লাখ টাকা মুক্তিপণ দেওয়ার পথই বেছে নিচ্ছেন কিন্তু সরকারি চাকরিতে যোগ দিতে চাইছেন না। কারণ যেখানে তাঁরা duty করতে যাবেন, সেখানে না আছে চিকিৎসা পরিকাঠামো, না আছে সাপোর্টিং স্টাফ, আর না আছে তাঁদের বসবাসের সুবন্দোবস্ত।

যাই হোক্ DA র বিষয়ে ফিরে আসা যাক। 

হাইকোর্টে রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল declaration দিয়েছেন যে রাজ্য সরকারি কর্মীদের DA কিছু বাকি নেই। তাতে কর্মচারী সংগঠনের কৌঁসুলি বলেছেন যে রাজ্য ROPA অনুযায়ী কর্মীদের DA দিলেও কেন্দ্রীয় সরকারি হারে দিচ্ছে না। তাতে কোর্ট জানতে চেয়েছে যে রাজ্যের ROPA আইন অনুযায়ী রাজ্যের কর্মীদের DA কত বাকি আছে না আছে, তা স্পষ্ট ভাবে জানাতে হবে। বাস্তব হল, ROPA তে DA সম্বন্ধে পরিষ্কার guideline দেওয়া আছে ২০০৯ এর মার্চ পর্যন্ত। তার পরের time period এ DA কি হবে তা নিয়ে স্পষ্ট করে কিছু বলা নেই। কিন্তু কেন নেই তা ব্যাপারটা একটু বিশদে দেখলে বোঝা যাবে।  

পঞ্চম পে কমিশন গঠিত হয় ২৮.৮.২০০৮ তারিখে শ্রী সত্যেন্দ্রনাথ ঘোষের নেতৃত্বে। ২০০৯ সালের ১২ই ফেব্রুয়ারী পে কমিশন তার রিপোর্ট জমা দেয়, যা পশ্চিমবঙ্গ সরকার কার্যকর করে ২৩ শে ফেব্রুয়ারী ২০০৯ তারিখে। যদিও পয়লা জানুয়ারী ২০০৬ থেকে বর্ধিত বেতনক্রমের notional effect দেওয়া হয়, কিন্তু একই সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গ সরকার ঘোষণা করে যে মার্চ ২০০৮ পর্যন্ত কোনো arrear payment করা হবে না। স্বাভাবিকভাবেই সেই পর্যন্ত কোনো DA ঘোষণা করারও প্রশ্ন ওঠে নি। সেই ২৩ শে ফেব্রুয়ারী ২০০৯ তারিখেই একটি memorandum (no. 1692-F) এর মাধ্যমে সরকার জানিয়ে দেয় যে ১.৪.২০০৮ থেকে ১.৪.২০০৯ এর মধ্যে ধাপে ধাপে DA মিটিয়ে দেওয়া হবে যাতে ১.৪.২০০৯ থেকে রাজ্য সরকারি কর্মীরাও ১৬% হারে DA পেতে থাকবেন। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে সেই ২৩ শে ফেব্রুয়রী ২০০৯ তারিখে দাঁড়িয়ে একজন কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীও ১৬% হারেই DA পেতেন। 

মেমোরাণ্ডামের কিছু অংশ উদ্ধৃত করছি: লিঙ্ক নীচে লেখার শেষে

ROPA: Memorandum No. 1691-F dated 23rd February, 2009. 
Subject: Clarificatory Memorandum on the West Bengal Services (Revision of Pay & Allowance) Rules, 2009 & on allied matters dealt with by the Fifth Pay Commission

Serial No. 10. Dearness Allowance - "Consequent upon revision of pay of Government Employees in accordance with the West Bengal (Revision of Pay & Allowance) Rules, 2009, the Dearness Allowance to which a Government Employee is entitled from time to time since the 1st day of January, 2006 needs to be related to pay in the revised pay structure. Necessary Government Order in this regard has been issued with Finance Department Memo. No. 1692-F dated the 23rd February, 2009." 

চলুন দেখা যাক memo no. 1692. তে কি বলা ছিল।

1692-F dated the 23rd February, 2009." 
Subject: Drawal of Dearness Allowance in the revised pay structure under the West Bengal (Revision of Pay & Allowance) Rules, 2009, 
Serial No. 3. "Accordingly the Governor is pleased to decide that the Dearness Allowance payable to a Government Employee with effect from 1st April, 2008, shall be at the following rates.

1.4.2008 - 31.5.2008 @ 2%
1.6.2008 - 31.10.2008 @ 6%
1.11.2008 - 28.2.2009 @ 9%
1.3.2009 - 31.3.2009 @ 12%
1.4.2009 onwards @ 16% 

এই তারিখের ১৮ দিন পরে অর্থাৎ ১৩ই মার্চ ২০০৯ তারিখে অবশ্য ভারতসরকার তাদের memorandum no. 1(1)/2009-E-II(B) এর মাধ্যমে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের প্রাপ্য DA র হার ১৬% থেকে বাড়িয়ে ২২% করে দেয় with effect from 1st January, 2009. কিন্তু এর থেকেই বোঝা যায় যে যেহেতু এই কেন্দ্রীয় মেমোরাণ্ডাম প্রকাশের ১৮ দিন আগে অর্থাৎ ২৩ শে ফেব্রুয়ারী ২০০৯ তারিখে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের জানা ছিল না যে কবে আবার কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের DA বাড়বে এবং কত বাড়বে, তাই তারা নিজেদের মেমোরাণ্ডাম প্রকাশের সময় সর্বোচ্চ DA র হার নির্দিষ্ট করেছিল কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের সেদিনকার existing DA র হারের সমান করে। অর্থাৎ ১৬%. 

মেমোরাণ্ডামের কিছু অংশ উদ্ধৃত করছি: লিঙ্ক নীচে লেখার শেষে

As on 23rd February 2009, the rate of DA given to the Central Government Employees was 16%. On 13th March, 2009 vide office memorandum no. 1(1)/2009-E-II(B) the Central Government enhanced the DA payable to the Central government employees "...from the existing rate of 16% to 22% with effect from 1st January, 2009." 


1.1.2009 @22%
1.7.2009 @ 27%
1.1.2010 @ 35%
1.7.2010 @ 45%
1.1.2011 @ 51%
1.7.2011 @ 58%
1.1.2012 @ 65%
1.7. 2012 @ 72% 
1.1.2013 @ 80%
1.7.2013 @ 90%
1.1.2014 @ 100% 
1.7.2014 @ 107%
1.1.2015 @ 113%
1.7.2015 @ 119%
1.1.2016 @ 125%

After this the Central government announced DA calculations based on AICPIN with base year 2001. 

AICPIN December 2015 value was 269. In June 2006, it was 123. 

AICPIN IN JUNE 2016       277
AICPIN DECEMBER 2016   275
AICPIN JUNE 2017             280

DA is equal to (average of AICPIN for the past 12 months - 115.76) * 100 / 115.76. 

এই ঘটনা থেকে এটা বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয় যে রাজ্য সরকার তার কর্মচারীদের DA দেবার সময় কেন্দ্রীয় হারকেই অনুসরন করে বা করত, যদিও তা কার্যকর করতে কয়েকমাস দেরী করত। 

বর্তমানে পৌঁছিয়ে আমরা দেখছি যে রাজ্য সরকার তাদের সম্পূর্ণ খেয়ালখুশী মত DA ঘোষণা করছে যার সঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের DAর হারের কোনো সামঞ্জস্যই নেই। অপরপক্ষে কেন্দ্রীয় সরকার তাদের কর্মচারীদের জন্য প্রতি ছ'মাস অন্তর যে DA ঘোষণা করে তা সম্পূর্ণ বৈজ্ঞানিক উপায়ে নির্ধারিত এবং AICPIN (All India Consumer Price Index) বা মূল্যবৃদ্ধি সূচকের সঙ্গে সম্পূর্ণ সাযুজ্যপূর্ণ। ২০০১ সালের মূল্যকে base বা ১০০ ধরে নিয়ে DA হিসেব করা হয় নিম্নোক্ত ফর্মূলা মেনে। 

DA = (গত বারোমাসের গড় AICPIN - 115.76)*100/115.76. 

এর কারণ ১১৫.৭৬ হল ২০০৬ সালের AICPIN as on 1.1.2006.(অর্থাৎ ১.১.২০০৫ থেকে ১.১.২০০৬ পর্যন্ত প্রতি মাসের AICPIN এর গড়) যখন থেকে কেন্দ্রীয় সরকার তাদের ষষ্ঠ বেতন কমিশনের রিপোর্ট কার্যকর করেছিল। সেই দিক দিয়ে হিসেব করলে যেহেতু জুন ২০১৭ র AICPIN হল ২৮০. সুতরাং DA হার হওয়া উচিত (280 - 115.76)*100/115.76 = 142% (approx). কেন্দ্রীয় সরকারের DAর হার exactly এর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ যদিও ইতিমধ্যে তারা তাদের সপ্তম বেতন কমিশনের সুপারিশও কার্যকর করে ফেলাতে exact DA র হার নতুন করে হিসেব করা হচ্ছে ২০১৬ র নিরিখে(যেমন এর আগে পর্যন্ত হত ২০০৬ এর নিরিখে যার ভিত্তিতে আমরা এই ১৪২% পেয়েছি)। 

কিন্তু রাজ্যসরকার যেহেতু এখনও তাদের কর্মচারীদের ২০০৬ এর বেতন হারেই মাইনে দেয় এবং তাদের গঠিত ষষ্ঠ বেতন কমিশনের মেয়াদ যেহেতু ক্রমাগত বাড়িয়েই চলেছে, তাই মূল্যবৃদ্ধি সূচকের হিসাব ধরলে ১.৭.২০১৭ তারিখ থেকে কর্মচারীদের DA পাওনা হয় ২০০৬ সালের বেতন হারের উপর ১৪২%. বাস্তবে সেখানে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার তার কর্মচারীদের DA ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত দিয়েছে ৮৫% হারে। অর্থাৎ ৫৭% কম। ২০১৮ সালের জানুয়ারী থেকে আরও ১৫% DA দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হলেও এই হিসেবে বকেয়া DA র পরিমাণ তবু থেকে যায় ৪২%. 

তাহলে রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল কেন কোর্টকে হলফনামা দিয়ে জানালেন যে রাজ্য সরকারি কর্মচারিদের DA কিছু বাকি নেই? অর্থাৎ কেন তিনি রাজ্য সরকারের হয়ে কোর্টকে মিথ্যা বললেন?

বললেন কারণ এইখানেই রাজ্য সরকারের অসততা। আমরা আগেই বলেছি যে ROPA 2008 সংলগ্ন memorandum no 1692-F অনুসারে রাজ্যসরকারের ঘোষিত সর্বোচ্চ DA র হার ছিল ১৬%. সেই হারে DA তো রাজ্যসরকার সত্যিই দিয়েছে এবং সময়ে সময়ে ঘোষিত আদেশ অনুসারে তার চেয়ে বেশি হারেই DA দিয়ে চলেছে। সেই যুক্তিতে রাজ্য সরকার আইনের ফাঁক খুঁজে আদালতকে বোঝাতে সচেষ্ট হয়েছে যে সমস্ত ঘোষিত DA ই তো দেওয়া হয়, তাহলে DA বকেয়া থাকার প্রশ্ন ওঠে কোথায়? অর্থাৎ কোনো DA বকেয়া নেই। 

তাই যদি হয়, তাহলে বলুন দেখি এর মধ্যে অসততা কোথায়? অসততা এইখানেই,  memorandum no 1692-F এর তারিখ যে ২৩ শে ফেব্রুয়ারী ২০০৯, এবং সেই তারিখে দাঁড়িয়ে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের জন্য ঘোষিত DA র পরিমাণ যে সেই একই ১৬%, অর্থাৎ রাজ্যসরকারি কর্মচারীদের DA ঘোষণার সময় কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের জন্য ঘোষিত DA র হার যে অবশ্য বিবেচ্য, এই সত্যটা রাজ্য সরকার সুকৌশলে অগ্রাহ্য করে গেছে এবং কোর্টের কাছে অর্ধসত্য উপস্থাপনা করেছে। 

এছাড়াও রাজ্য সরকার আর একটি মারাত্মক গুরুত্বপূর্ণ সত্যকে বেমালুম চেপে গেছে। তা হল, ROPA rules এর সঙ্গে সংযুক্ত memorandum no 1691-F dated 23rd February, 2009 (অর্থাৎ সেই যেখানে ROPA rules 2009 এর অন্তর্গত কোনো খানে DA র ব্যাপারে কিছু বলা আছে সেই একই memorandum এ) প্রথমেই পে কমিশন গঠন করবার কারণ হিসাবে যে পাঁচটি পয়েন্ট উল্লেখ করা হয়েছে, তার পাঁচ নম্বর পয়েন্টে বলা হয়েছে "to make recommendations on each of the above having regard inter alia to the prevailing pay structure under the Central Government, public sector undertakings & other State Governments etc..." অর্থাৎ কেন্দ্রীয় সরকারি বেতন কাঠামোর সাথে রাজ্য সরকারি বেতন কাঠামোর সাযুজ্য বজায় রাখার দায়িত্ব দিয়েই আদৌ বেতন কমিশন গঠন করা হয়েছিল। রাজ্য সরকার সেই কথাটুকু চেপে গিয়ে বরং highlight  করতে চেয়েছে সেই একই পয়েন্টে বলা শেষ কথাগুলি যেমন " ...the resources of the State Government & the demands thereon on account of the commitment of the State Government to developmental activities." তাই তারা বলতে চেয়েছে যে যেহেতু সমস্ত উন্নয়নমূলক দায়বদ্ধতা পূরণ করার পর, মানে মেলা, খেলা, উৎসব, ইমাম-মোয়াজ্জিন ভাতা ইত্যাদিতে খরচ করার পর, রাজ্য সরকারের হাতে যথেষ্ট resource বাঁচেনা তাই কর্মচারীদের DA দেওয়া সম্ভব নয়। এই যে নিজেদের সুবিধামত আংশিক সত্যকে চেপে গিয়ে বাকি আংশিক সত্যের উপর নির্ভর করতে চাওয়া এখানেই অসততা। 

একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে আমার মনে হয়েছে, এইভাবে আইনের ফাঁক খুঁজে নিজের সুবিধামত 'কেস' সাজানো আসলে এক ধরনের মিথ্যাচার ও অপরাধমনস্ক ভাবধারা, যা ব্যক্তিবিশেষকে মানালেও কোন রাজ্য সরকারকে তা মানায় না।

তাছাড়াও, এই যে 'নিজেদের' সুবিধা চাওয়া, এর মাধ্যমে রাজ্য সরকার প্রমাণ করে চলেছে যে তারা আর তাদের কর্মচারীদের 'নিজেদের' মধ্যে গণ্য করে না। কিন্তু আমরা সাধারণ মানুষরা তো জানি যে রাজ্য সরকারি কর্মচারীরা রাজ্য সরকারেরই ওতপ্রোত ও অবিচ্ছেদ্য অংশ। চাকরির শর্ত অনুযায়ী রাজ্য সরকারি কর্মীরা ২৪ ঘন্টাই তাঁদের কর্তব্যের জন্য দায়বদ্ধ। বা আরও ভালোভাবে বলতে গেলে বলা যায় সমস্ত রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের সম্মিলিত সত্তাই হল রাজ্য সরকার। কিন্তু আমাদের পশ্চিমবঙ্গের দুর্ভাগ্য যে এখানকার মুখ্য জনপ্রতিনিধি সম্ভবতঃ রাজ্য সরকার বলতে বোঝেন শুধু সরকারি ক্ষমতার অপব্যবহারকে এবং সেই অপব্যবহার করবার ন্যায্য অধিকারী হিসেবে কেবলমাত্র নিজেকে। তাই তিনি রাজ্য সরকার এবং রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের মধ্যে প্রভেদ দেখতে পান এবং বিভেদ বুনতে চান। এ যেন অনেকটা কোনো বস্তুর থেকে তার সবকটি অণু পরমাণুকে বিচ্ছিন্ন করে দিয়েও সেই বস্তুটির অলীক অস্তিত্ব কল্পনা করার মত। 

তাই DA মামলা শুধু রাজ্যসরকারি কর্মচারীদের দাবীদাওয়া আদায়ের মামলা নয়। এই মামলা আসলে রাজ্য সরকারের বাস্তব ব্যবহারিক অস্তিত্ব ও রাজনৈতিক অলীক অস্তিত্বের মধ্যে লড়াইয়ের মামলা। এর সঙ্গে জড়িত আছে আমাদের প্রত্যেক রাজ্যবাসীর স্বার্থ কারণ রাজ্য সরকারটা আমাদের, কোনো রাজনৈতিক দলের বা রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের ব্যক্তিগত মালিকানাধীন নয়। রাজ্যসরকারের প্রত্যেকটি পরিষেবার ন্যায্য অধিকারী আমরা, সাধারণ রাজ্যবাসীরা এবং সেই পরিষেবা প্রদানকারী হলেন রাজ্য সরকারি কর্মচারীরা। তাঁরা আমাদের নিযুক্ত কর্মচারী এবং মুখ্যমন্ত্রী আর কেউ নন, আপনার আমার মত সাধারণ মানুষেরই মুখ্য প্রতিনিধি মাত্র। এই সত্য যেদিন আমরা রাজ্যবাসী সাধারণ মানুষেরা বুঝতে পারবো, সেদিনের অপেক্ষায় আছি। 




যদি কেউ জানতে ইচ্ছুক থাকেন যে AICPIN এবং State wise CPIN গুলো বিভিন্ন সময়ে কেমনভাবে vary করেছে, তাহলে নীচের লিঙ্ক দেখুন। এ থেকে আমরা স্পষ্ট ধারনা পাই যে ALL INDIA CONSUMER PRICE INDEX আর আমাদের রাজ্যের CONSUMER PRICE  INDEX তুল্যমূল্য বরং রাজ্যের কিছু জায়গায় তা বেশি। দিল্লির থেকে তো সর্বত্রই বেশি। অর্থাৎ দেশের গড় মূল্যবৃদ্ধি সূচকের চাইতে আমাদের রাজ্যের মূল্যবৃদ্ধি সূচক কম কিছু নয়।