বুধবার, ৫ জুলাই, ২০১৭

বাদুড়িয়া দাঙ্গা ~ শোভন চক্রবর্তী

চৌত্রিশ বছরে দশমী আর মহরম একবারও একই দিনে পরেনি? উত্তর হ্যাঁ! বহুবার পরেছে!ঠাকুর বিসর্জনও হয়েছে আবার তাজিয়াও বেড়িয়েছে! জ্যোতি বসু, বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য্যকে কখনও বলতে শুনেছেন ঠাকুর বিসর্জন বন্ধ(?) নাহ! ধর্ম ধর্মের পথে চলেছে! অরিন্দম শীল নয় বেণীমাধব শীলের ফুল পঞ্জিকা বলছে ২০০২এ গুজরাট দাঙ্গার বছর যেদিন দশমী সেদিনই ইসলাম মতানুযায়ী মহরম ছিলো! কেশপুরে শেষপুর দেখার পরের বছরও CPI(M) এর নেতৃত্বে চলা বামফ্রন্ট সরকারকে খাবি খেতে হয়নি!আমাদের রাজ্যে কি এমন হলো যে বিসর্জন বন্ধ করে দিতে হবে! আসলে কিছুই হয়নি! বিসর্জনটা বন্ধ করে হিন্দু সাইকোলজিতে ঢুকিয়ে দেওয়া হলো "শালা মুসলমানের মহরমের জন্য বিসর্জন বন্ধ করে দিলো মমতা!" রামকে জমি দিতে ইসলাম দরকার! ময়দানে এলেন অবতার দিলীপ এবং তপন ঘোষ! এই প্রথম কোন মুখ্যমন্ত্রী উৎসবে পাঁচিল তুললো! 
এর আগে পশ্চিমবঙ্গের কোন মুখ্যমন্ত্রীকে মঞ্চে উঠে কোরানও কোট করতে হয়নি আবার ইয়া দেবী সর্ব্বভূতেশুও আওড়াতে হয়নি! তাতে শ্রীভূমি কিংবা সুরুচি সংঘে এসেছে শরৎ থিমের পরশ লাগেনি এমনটাও হয়নি আবার কাজী পাড়ায় চাঁদের নানী ঈদে বিরিয়ানিতে ক্যাওড়া জল বেশি ঢেলে ফেলেছে এমনটাও হয়নি!
রামনবমীর অস্ত্র আস্ফালন আপনার জন্য! ধূলাগড়ে অশান্তির মূলে আপনি! কারন বিভেদের তাস খেলেছেন আপনি! নোটের রাজনীতি,ভোটের রাজনীতি মিলিয়ে দিয়েছেন আপনি! ঢঙের সঙ্গে রং মিশিয়ে দিয়েছেন আর মিলে মিশে থাকা মানুষকে আলাদা করে দিয়েছেন! মানুষকে মানুষের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দিয়েছেন আপনি! ইসকনের রথ টেনেছেন আর প্রশাসনকে ঠুঁটো জগন্নাথ করেছেন!
তবু ......
যেহেতু রাজ্যটার নাম পশ্চিমবাংলা এখনও তাই অল্প হলেও ভরসা আছে! প্যারালাল ভাবে রাজনৈতিক আর প্রশাসনিক কাজ শুরু করুন! আপনার জন্য নয়! মানুষের হাত থেকে মানুষের রক্ত মুছতে! পশ্চিমবাংলার গা থেকে দাঙ্গার গন্ধ মুছতে বামপন্থীরা রাস্তায় থাকবে! কারন এখনও বিশ্বাস করি-
আমার মাটি আমার মা 
পাকিস্তান হবে না!
গুজরাটও হবে না!