শুক্রবার, ১৪ জুলাই, ২০১৭

নয়ডা ~ আর্কাদি গাইদার

'কে কখন কোথায় কিভাবে বিষ্ফোরণ ঘটাবে তা জানতে রাষ্ট্রশক্তির এখনো বাকি আছে'
- হারবার্ট, নবারুন ভট্টাচার্য্য

নয়ডাতে মহাগুন মর্ডার্ন সোসাইটি নামক গেটেড কমপ্লেক্স। গেটেড কমপ্লেক্স মানে এই যেমন ধরুন কলকাতার সাউথ সিটি, বা বেংগল অম্বুজা। প্রাচীর ঘেরা জমি, সবুজ লন, তার মধ্যে ছবির মতন সুন্দর অট্টালিকার সমাবেশ। বাইরের নোংরা শহর আর তার ততধিক নোংরা ঘেমোগন্ধওয়ালা মানুষগুলোর থেকে পার্টিশন করা সম্পূর্ন আলাদা একটা জগত। তা এরকমই একটি গেটেড কমিউনিটি মহাগুন মর্ডার্নের কোন একটি ফ্ল্যাটে কাজ করতেন জোহরা বিবি। পরশু থেকে হঠাত নিখোজ হয়ে যান। তারপর কাল তার হদিশ পাওয়া যায়। তার মালিকের দাবি যে জোহরা বিবি নাকি ১০০০০ টাকা চুরি করে বাড়ির বেসমেন্টে লুকিয়ে ছিলেন। জোহরা বিবি জানিয়েছেন, তাকে মালিক গোটা দিন একটা ঘরে আটকে রেখেছিলো। এরপর জোহরা বিবির  বাড়ি যেযে বস্তি/কলোনীতে সেখানকার লোকজন খেপে গিয়ে কমপ্লেক্সে হামলা করেন, ভাংচুর করেন। সিকিওরিটি গার্ডরা হাওয়ায় গুলি চালায়। তারপর পুলিশ আসে। আপাতত ওই বস্তির ৫০ জন পুলিশ হাজতে।

এর পরেই বাজার গরম হয়ে ওঠে বিভিন্ন ভাবে। বেশ কিছু মিডিয়া রিপোর্ট করে যে 'আবাসনের শান্তিপ্রিয় বাসিন্দাদের ওপর 'মব' এর হামলা'। চুরি লুকোতে গা জোয়ারি। ব্যাক্তিগত সম্পত্তি ধ্বংস। সোশ্যাল মিডিয়াতে ভদ্রলোকেরা আতংকিত হয়ে লিখতে শুরু করে - এদের কে কাজে রাখা যাবে না! কি অনাসৃষ্টি! কত সাহস! এমনকি চাড্ডিরাও পিছিয়ে থাকবে না বলে প্রচার শুরু করে দিয়েছে 'হিন্দু মালিকপক্ষের ওপর বেআইনি বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারী মোল্লাদের হামলা'। চাড্ডিদের নিয়ে আজকাল আর অবাক হইনা, হাসিও পায় না। যে কোন শ্রেনী সংঘাতকে সাম্প্রদায়িক রং দিতে ওরা বিশেষ ট্রেনিং পায় বোধহয়। ভাঙরের ক্ষেত্রেও করেছিলো। তা এই চরম ক্যাকোফোনির মধ্যেও কিছু কিছু মিডিয়া ঘটনার সব দিক তুলে ধরে রিপোর্টিং করবার চেষ্টা করেছে, তার লিংক কমেন্টে দিয়ে দেবো।

এই হলো তথ্য। এরপর আসবে সত্য। আমি দুটো বাক্য কে মূলমন্ত্র মেনে চলি - Seek truth from facts. আর There is no truth but class truth. তাই আপাতত তথ্য থেকে শ্রেনী সত্য উদঘাটনের সামান্য প্রয়াস করি।
প্রথমেই জানাই, জোহরা বিবি মিডিয়াকে জানিয়েছেন যে তিনি কুচবিহারের বাসিন্দা, এবং ভারতের নাগরিক হিসেবে তিনি নিজের আধার কার্ড, ভোটার কার্ড সবই পুলিশ এবং মিডিয়াকে দেখিয়েছেন। এবার চলুন তর্কের খাতিরে ধরে নিলাম উনি বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারী মোল্লা। তা ওনাকে কাজে রাখবার সময় তো এইটা নিয়ে কোন অসুবিধে হয়নি। তাহলে আজকে ওনার সাথে বৈরিতার সময় এই তথ্য দিয়ে কি হবে? 
ভারতবর্ষের উচ্চমধ্যবিত্ত কি পরিমানে সামন্ততান্ত্রিক মানসিকতা বহন করে, তার প্রমান আমরা রোজ হাতেনাতে পাই নিজেদের জীবনের অভিজ্ঞতা দিয়ে। এ ছাড়া এই বাংলাতেই খবরের কাগজে মাঝেমধ্যেই বাড়ির কাজের লোকের ওপর অত্যাচার নিয়ে কত খবরই বেরোয়। সেখানে নয়ডার মতন জায়গার বড়লোকরা, বিশেষ করে এই আবাসনে থাকা পয়সাওয়ালারা, যাদের অভিজ্ঞতা আছে, জানবেন যে বাকিদের থেকে অনেককাঠি ওপরে। তাই যখন দেখেছি যে গোটা কলোনীর লোক একসাথে আবাসনে হামলা চালিয়েছে, এটা বুঝতে খুব অসুবিধে হয়নি যে এটা দিনের পর দিন পুঞ্জিভূত হওয়া অন্যায়, অপমান ও শ্রেনীঘৃনার বহিঃপ্রকাশ। 'তোমার আছে, আমাদের নেই' স্রেফ এই কারনে তুমি আমাকে নিচু চোখে দেখলে, একদিন আমি ফেটে পড়বোই।
আমার নিরপেক্ষতার প্রতি কোন দায়বদ্ধতা নেই। বৈষম্যের পৃথিবীতে নিরপেক্ষতা বজায় রাখা মানে ক্ষমতার পাশে দাঁড়ানো। 'নিরপেক্ষতা' দেখানোর জন্যে মিডিয়া আছে, ফেসবুকের বাবু বিবিরা আছে। আমার একমাত্র দায়বদ্ধতা শ্রেনীর প্রতি। তাই আমি ওই মহাগুন মর্ডার্নের তছনছ হয়ে যাওয়া সবুজ লন আর দুমড়ে মুচড়ে ভেঙে যাওয়া স্থাপত্যগুলো দেখে খুব আনন্দ পেয়েছি। ওই চকচকে ঝকঝকে চামড়াওয়ালা ভীত মুখ গুলো দেখে উল্লাসে ফেটে পড়েছি।
ঠিক যেমন পেয়েছিলাম কয়েকদিন আগে কলকাতার আবাসনে পাশের বস্তি থেকে হামলা করে সব দামী গাড়ি গুড়িয়ে দেওয়াতে। 
জোহরা বিবির বস্তির লোকজন বেশ করেছেন। লাল সেলাম।

There is a storm coming Mr Wayne. You and your friends better batten down the hatches, because when it hits, you are all gonna wonder how you could live so big, and leave so little for the rest of us.