বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

কাশ্মীর ~ অবীন দত্তগুপ্ত

​কুনান পোশপারা কাশ্মীরের একটি জায়গার নাম । কুনান পোশপারা ভারতের একটি জায়গার নাম । কুনান পোশপারা এমন একটি জায়গার নাম , যার প্রতিটি বাড়িতে ১৮ থেকে ৫৮ অব্দি প্রত্যেকটি মেয়ে ধর্ষিতা ।

পলিটিকাল কারেক্টনেস্‌ অনেক কিছুই লিখতে দেয় না । কাশ্মীর ভারতের অংশ হয়েছিল অটোনমির আশ্বাস পেয়ে । কথা ছিল , কাশ্মীরের জাতিয় সঙ্গিতটাও নিজস্ব হবে । সেই অনুযায়ী রচিত ভারতের সংবিধানের আরটিকাল নম্বর ৩৭০ । এলাস্‌, প্রতিটি সরকার এসেছে , কাশ্মীর একটু একটু করে নিজের স্বাধীনতা হারিয়েছে । যা যা কথা দেওয়া হয়েছিল ,একটি কথাও রাখা হয়নি । এর বিরুদ্ধে যখন বিদ্রোহ তৈরি হয়েছে , তখন আফস্পা নামের একটা ভয়ঙ্কর আইন চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে । চারদিকে বন্দুক । গুম-খুন-ধর্ষণ । ভাবুন তো কোন টানে , স্ত্রীয়ের শরীরের উষ্ণতা ছেড়ে এক মধ্য বয়সী যুবক , ঠান্ডা বন্দুকে উষ্ণতা খুঁজে পায় ?? কখন পায় ?? আপনি বলবেন "জিহাদ।" মনে রাখবেন , জম্মুতে যখন রক্তের হোলি খেলা হচ্ছে ৪৭-এ , বিশাল একতরফা দাঙ্গায় খুন হচ্ছেন ওখানকার মুসলমান মানুষ - তখন কাশ্মীর ছিল সম্পূর্ণ শান্ত । মুসলমান মৌলবাদিরা এরজন্য কাশ্মীরকে গালি দিতেন - প্যান মুসলমান ঐক্যে কাশ্মীরিরা বেমানান । তাই জিহাদ্‌ কথাটা ঠিক খাটবে না । একটা নির্যাতিত জনজাতি , যখন যার উপর ভরসা করেছে সেই তখন পিঠে ছুড়ি বসিয়ে দিয়েছে । অতএব বিচ্ছিন্নতা বেড়েছে । এর সুযোগ নিয়েছে সিমান্তের ওপারের শকুনেরা ।

গরিব বাড়ির ছেলেদের ,যাদের চাষে দিন চলে না (অতএব আর্মি) , হাতে বন্দুক ধরিয়ে দাঁড় করিয়ে দিলেন আগ্নেয়গিরির সামনে । ১৭ জন খুন হলেন । আপনি ৫৬ ইঞ্চির তান্ত্রিক ১৭টা মৃতদেহ পেলেন । সামনেই উত্তরপ্রদেশ - গুজরাটের নির্বাচন । লাগাও যুদ্ধ । ঘুরাও চাকতি ।

আচ্ছা , আপনি আপনি আপনি , আপনারা সকলেই মনে করেন কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্দ অংশ । তা এই এক মাসে , যে ৮০ জন খুন হয়ে গেল , আজকে যে বাচ্চাটা (১১ বছরের) মাথার চুল উপড়ে নিয়ে , ৪০০টা পেলেট গায়ে গেথে মরে গেল , তারা ভারতীয় নন ? কুনান পোশপারায় প্রতিটি বাড়িতে থাকা ,প্রতিটি নারী ভারতীয় নারী নন ? কাশ্মীরের কেউ নিজেদের কথা আপনাদের বলতে পারছেন না । কাশ্মীরে গুগুল -ইউটিউব- ফেসবুক ব্যানড্‌ । আপনার দেশের অবিচ্ছেদ্দ অংশের মানুষ কেন আপনার থেকে কম সুবিধে পাবে ? কেন তার সংবিধান প্রদত্ত মিনিমাম রাইট টূ ইনফোরমেশন থাকবে না ?

আচ্ছা আরেকটু সহজ করে দি । হিন্দি সিনেমার মতো সহজ । কানেক্ট করতে সুবিধে হবে ।হায়দার সিনেমাটা দেখেছেন তো । টাবুকে দেখেছেন । টাবুর সারা মুখে ছড়িয়ে থাকা যন্ত্রণা ? দেখেছেন ? সবাই টাবুর সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছিল । ছেলেটা পর্যন্ত ,অতো সাধের ছেলেটা পর্যন্ত আগন্তুক হয়ে গেল । কেউ কথা রাখে নি । বিশ্বাসঘাতক আপনজনের ছোড়ায় ক্ষতবিক্ষত , সারাটা জীবন বিশ্বাস করে ঠকে যাওয়া ,শেষে ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া 'টাব্বু' কাশ্মীরের পারসনিফিকেশন - ধরে নিন, টাব্বুই কাশ্মীর ।​