বুধবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

বলো বাবা বিশ্বকর্মা মাইকি জয়!! ~ শ্রুতি গোস্বামী

বাবা বিশ্বকর্মার পুজোর দিনে কিছু টুকরো টুকরো ঘটনার মন্তাজঃ

১। সকালে বাবার পুজোতে গলা ফাটিয়ে মাইক বাজিয়ে যে গান গুলি বাজছে তার কিছু নমুনাঃ "তোমার বাড়ির সামনে দিয়ে আমার মরণ যাত্রা যেদিন যাবে","মা গো,ভাবনা কেন,আমরা তোমার শান্তি প্রিয় শান্ত ছেলে"(সকাল থেকে আমার ঘুমের অশান্তি ঘটিয়ে),"আমায় একটু জায়গা দাও মায়ের মন্দিরে বসি"( বাবার পুজোয় মায়ের গান এ উৎসাহ দেখে বুঝলাম এ রাজ্যে মায়ের আরাধনা এবং শ্লিলতাহানি দুটোই সমান উৎসাহে চলে)। সেই শ্লিলতাহানি ধামাচাপা দিতে ছাত্রদের লাঠি চার্জ করা হয়।পুলিশ এবং গুন্ডাদের আলাদা ট্রেনিং দেওয়া হয় কিভাবে মহিলাদের কে আরেস্ট করতে গেলে তাদের বুকে হাত দিয়ে টেনে হাতকড়া পড়াতে হয়।যাতে মায়ের শান্তিপ্রিয় শান্ত ছেলেরা শান্তি বজায় রাখতে পারে।

২। অফিসে সবাই বাবা কে হাত জোড় করে প্রার্থনা জানালো,৪৯% ডি এ টা এবারে দিয়েই দেওয়া হোক,আর পারা যাচ্ছে না।কেও কেও আবার এক কল এ টেন্ডার ম্যাচিওর করে দেওয়ার আর্জিও জানালো।

৩। আজকে রাজ্য মাতাল দিবসের নাম রাখার প্রচেষ্টার কোনো ত্রুটি দেখলাম না।বাড়ি ফেরার সময় গাড়িতে যেতে যেতে দেখলাম একটি লোক এইচ পি এল লিঙ্ক রোডের পাশে সাইকেল সমেত উলটে পড়ে আছে,এবং সেখানেই শুয়ে শুয়ে মোবাইলে কিসব মেসেজ পাঠাচ্ছে কাওকে।তার ওঠারও ক্ষমতা নেই।

৪। রাস্তার দু ধারে বাবার প্যান্ডেল খাঁ খাঁ করছে,সবাই বাবার নামে এ দু পেগ চড়াতে গেছে।

৫। একটি মাতাল পুরোহিত কে দুটি লোক মোটরসাইকেল এ মাঝখানে চেপে ধরে নিয়ে যাচ্ছে কোথাও।তাদের বোধহয় তখনও পুজো হয়নি।মাল খেতে ব্যস্ত ছিল।

৬। বলো বাবা বিশ্বকর্মা মাইকি জয়!!