শনিবার, ২০ অক্টোবর, ২০১২

শোনো সৌদামিনী ~ অরুণাচল দত্তচৌধুরী


বিদ্যুৎলতা শোনো,
এইখানে ... এই ঘরে ... এসো না কখনও! 

জানালার শার্সি ভাঙ্গা, আরসিতে কুয়াশার দাগ ...
সিন্দুকে মলিন ধূলো চাপা পড়ে রয়েছে যে সোনা,
হয়তো তোমারই দেওয়া ...
তবু শোনো, এখানে এসোনা!

বেসিনে বমির ছিটে। গতরাত্রে তরল আগুন
দাপাদাপি তীক্ষ্ণদাঁতে চেতনা খেয়েছে।
স্বীকার করতে হবে, যার যেটা গুণ ...
প্রত্যেকেই পারঙ্গম, এমনকি তুমিও
আগুনের কোল পেতে নির্বিকার বলেছ ... "ঘুমিয়ো"

এই যে আমাকে দেখছ,
কিছুটা গোঁয়ার, কোনও নির্দেশে থামিনা ...
এটা কিন্তু আসলে আমি না!

কোটি কোটি অর্বুদ ভিতু আর বোকা অনুপ্রাণী
একা একা বেঁচে থাকা অসম্ভব জেনে আশাহত, হয়নি তবুও!
ভাগ করে নিল কাজ ... রেচন জনন
গাঢ় রক্ত চলাচল, মন্দ্রিত মনন!
যৌথখামার এক ... এ শরীর নেহাত্ই কলোনি!
অভিশাপ বাক্য যত, জেনে রাখো, ওদের বলেছ ...
কোনও দিনই ... আমাকে বলোনি!

মহামারী উল্কাপাত যুদ্ধ ঝড় ... ইতিহাস ... বোবা সাক্ষী থাকে,
অভিশাপ ছুঁইনি তাই, বিশালাক্ষি আমিও তোমাকে,
নালন্দা তক্ষশীলা নদীতীরে সমুদ্রে গুহায়
স্থাপন করেছি নির্দ্বিধায়।

মেঘের নিবাস ছেড়ে ,ভুল করে ... যদি ঘরে আসো সৌদামিনী ...
দেখে যেও বেঁচে আছি।
অন্বেষণ করে যাচ্ছি ... এখনও থামি নি