মঙ্গলবার, ১৩ মার্চ, ২০১২

ব্রাত্যজনের রুদ্ধসঙ্গীত ~ বাসব বসাক

শোনো শোনো শোনো সবে শোনো দিয়া মন

ব্রাত্যজনের রুদ্ধগীতি করিব বর্ণন -

ছিলেন আগুনখেকো বুদ্ধিজীবী, পরিবর্তনকামী

মন্দলোকে বলতো তখন তৃণ- অনুগামী

দিদির তরে কাঁন্দেরে প্রাণ আকুলি-বিকুলি

তাই; সময়কালে ঘোমটা খুলে দাগী-তৃণমূলী

বদল-তুতো দিদি তাহার, বুদ্ধিজীবী ভ্রাতা

জিতিয়ে ভোটে বানিয়ে দিলেন শিক্ষা লোকের ত্রাতা।

তখতে বসেই করেন জারি, নিত্যনব আইন

বিশ্ববিদ্যালয়-কমিটি, ব্রাত্য ছাত্ররাই

দলতন্ত্র নিকাশিতে নতুন দাওয়াই।

মেন্টর গ্রুপ আলো করে জ্ঞানের যতেক ভান্ড

কিবারূপ, মার্জিত, আহা কি-আনন্দ,

বাহুবলী ভ্রাতা সকল হইলেন রিক্রুট

ডান্ডা হাতে উপরে দিলেন দলতন্ত্রের রুট। 

কলেজে কলেজে আজ প্রসারিত শান্তি

মন্ত্রী মহদয়ের দেখ উদ্ভাসিত কান্তি -

এমনি করেই চলছিল বেশ সকাল-বিকেল-সন্ধ্যা

রাত্রিকালে কোথায় যান সেসব প্রশ্ন বন্ধ্যা।

হটাৎ করে কি যে হোল - উঠল চোঁয়া ঢেঁকুর

এমনি ঢেঁকুর ক্যামনে ওঠে জানা মাতাল ফেকুর।

মুখ ফস্কে বলে দিলেন - গোয়েন্দা নই আমি

ধর্মঘটের অধিকার আছে সবার মানি।

যেই না বলা এমনতর বে-আক্কেলে কথা

রেগে আগুন তেলে বেগুন হল দিদির মাথা

ভালোবাসি তা বলে এই সৃষ্টিছাড়া অনাচার! 

হ নিল ডাউন, বলতি বনধ, কেড়েই নেব ও চেয়ার ! 

দিদির হাতের কানমলা তার লাগলো বড় মিঠে 

আগুন-খেকোর যত আগুন গুহ্য দিয়ে ছোটে 

চেয়ার গেলে ছলা-কলার কি আর বল থাকে

তাইতো তিনি লিউকোপ্লাস্ট লাগিয়েছেন ঠোঁটে!

দোর লাগিয়ে ঘরের কোনে গান ধরেছেন - ভজন 

এমন আগুন খেকো প্রতিবাদী দেখেছে আর কজন!