শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

পেক্ষাগৃহে জাতীয় সংগীত ~ সরসিজ দাশগুপ্ত

"জনগণমন-অধিনায়ক জয় হে ভারতভাগ্যবিধাতা!
পঞ্জাব সিন্ধু গুজরাট মরাঠা দ্রাবিড় উৎকল বঙ্গ
বিন্ধ্য হিমাচল যমুনা গঙ্গা উচ্ছলজলধিতরঙ্গ
তব শুভ নামে জাগে, তব শুভ আশিষ মাগে,
গাহে তব জয়গাথা।
জনগণমঙ্গলদায়ক জয় হে ভারতভাগ্যবিধাতা!
জয় হে, জয় হে, জয় হে, জয় জয় জয় জয় হে।"

৫২ সেকেন্ড গান গেয়ে নিলাম। আইন সদা পরিবর্তনশীল, আজ প্রেক্ষাগৃহে বাধ্যতামূলক হয়েছে, কাল লেখালেখিতেও হতেই পারে। প্রগতিশীল মানুষ যে ভবিষ্যতের দিকে তাকিয়ে কাজ করবে তা বলাইবাহুল্য, তাই, একটু গেয়েই নিলাম। কি আর যায় আসে। ক্ষতি তো কিছুই নেই। হ্যাঁ, "মানতে ক্ষতি কি", এই যুক্তিতেই তো আজকাল সমস্ত বিতর্ক ধামা চাপা পরে যাচ্ছে। সত্যিই তো, ক্ষতি কি যদি কিছু মুহূর্ত দাঁড়িয়ে থাকতে হয় প্রেক্ষাগৃহের মধ্যে ? হোক না বাধ্যতামূলক, ক্ষতি তো কিছু নেই। মোটের ওপর এইভাবেই শুরু ও শেষ হয় সমস্ত ডান-পন্থী মানুষের যুক্তি। রাষ্ট্রের শাসন মানবে না কোনো ? কেনো সব ব্যাপারে প্রশ্ন করবে, এতো কিসের সমস্যা ? বাড়িতে বাবার শাসন মানোনা ? জানোনা শাসন মানুষ হওয়ার পথে এক অপরিহার্য আনুষাঙ্গিক ? কৈ, সিয়াচেনে -৪০ ডিগ্রী গরমে পাহারারত সৈনিকরা তো প্রশ্ন করছে না ? তোমার তো সবেতেই সমস্যা, দুনিয়ার কোন রাষ্ট্র পারফেক্ট ? এইসব আজকাল যেকোনো আলোচনায় দু-একজন বন্ধুবান্ধব বলেই ফ্যালেন। যেমন কথায় কথায় প্রশ্ন উঠে যাচ্ছে, আমাদের দেশাত্মবোধে, দেশপ্রেমে, দেশের প্রতি ভালোবাসায়। মৃদুস্বরে ধরুন ভুলবসত বলেই ফেল্লেন, "যুদ্ধ নয়, শান্তি চাই", ব্যাস, হয়ে গেলেন পাকিস্তান-পন্থী ! হয়ে পড়লেন দেশ-বিরোধী, হ্যাঁ, ওই একটা বাক্যেই একসাথে হয়ে গেলেন, উন্নয়নবিমুখ থেকে এন্টি-ন্যাশনাল হয়ে একদম, জেহাদি অব্দি। তা হোক, ক্ষতি কি ? সার্জিকাল স্ট্রাইকে কয়েকটা কল্যাটেরাল ড্যামেজ হয়েই থাকে।
এই লেখা যখন লিখছি, ইন্টারনেট তখন উত্তপ্ত আলোচনায় ব্যস্ত। তিরিশে নভেম্বর, দুহাজার ষোলোর যুগান্তকারী রায়ে মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে, ভারতবর্ষের সমস্ত প্রেক্ষাগৃহে ছবি শুরুর আগে বাধ্যতামূলকভাবে জাতীয় সংগীত শোনানো হবে। সত্যিই তো, ক্ষতি কি ? এতে যখন ক্ষতি কিছু নেই, তাহলে আলোচনাতেও ক্ষতি নেই। আসুন, বুঝেনি, কি হলো, কেন হলো, কিভাবে হলো।
ফিরে যেতে হবে, দু হাজার তিন সালে। ফিরে যেতে হবে, বলিউডে। করণ জোহরের "কভি খুশি কভি গম"। চলচ্চিত্রটির একটি দৃশ্যে অভিনেতা শাহরুখ খানের ছেলে, তার ইংল্যান্ডের স্কুলের বাৎসরিক অনুষ্ঠানে ভারতের জাতীয় সংগীত গাইতেই, প্রথমে শুধু শাহরুখ খানের পরিবার একমাত্র ভারতীয় হিসেবে উঠে দাঁড়ালেও, আস্তে আস্তে ভারতের জাতীয় সংগীতের সম্মানে উঠে দাঁড়ালেন অনুষ্ঠানে উপস্থিত সমস্ত দর্শক। কিন্তু উঠলেননা প্রেক্ষাগৃহে বসে থাকা দর্শকেরা। যাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জনৈক শ্যাম নারায়ণ চৌকসি। আধ্যাতিক ও  ধর্ম-কর্মে ব্যস্ত থাকা এই ভদ্রলোক কেন ও কি কারণে হটাৎ চলচ্চিত্র দেখতে গেছিলেন জানা যায়নি, তবে, জানা গেছে তার রাগ এবং দুঃখের কথা। দুইয়ের কেন্দ্রেই ওই উঠে না দাঁড়ানো দর্শককুল। নিজে উঠে দাঁড়াতে গিয়ে বাধা পেয়েছিলেন পেছনে বসা দর্শকদের থেকে, তারপর প্রথমে, প্রেক্ষাগৃহের মালিকের কাছে অনুযোগ, তারপর প্রেক্ষাগৃহের বাইরে সত্যাগ্রহ, তারপর পুলিশের কাছে অভিযোগ। এছাড়াও আরো নানান ভাবে তিনি জনসাধারণকে বোঝানোর চেষ্টা করে এবং সেই চেষ্টায় বিফল হয়ে, শেষে মামলা করেছিলেন, মহামান্য মধ্যপ্রদেশ হাই কোর্টে। প্রতিপক্ষ, কেন্দ্রীয় এবং মধ্যপ্রদেশ সরকারের সাথে সাথে সেন্সর বোর্ড আর চলচ্চিত্রটির প্রযোজকেরাও। যুক্তি ছিল, যেহেতু, ভারতবর্ষের সংবিধানে ও ১৯৭১ সালের ন্যাশনাল অনার এক্টে, জাতীয় সংগীতের অবমাননার ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে, এবং যেহেতু, জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে ব্যবসায়িক লাভ আইনত দণ্ডনীয়, সেহেতু, চলচ্চিত্রর অংশ হিসেবে জাতীয় সংগীতকে রাখা যাবেনা, এবং চলচ্চিত্রটিকে সাময়িক ভাবে বন্ধ করতে হবে, এই বিষয়ে শেষ সিদ্ধান্ত নেওয়া অব্দি। ওনার রিট পিটিশন আদতে ছিল, একটি জনস্বার্থ মামলা।
জাতীয় সংস্কৃতির রক্ষক ও দেশপ্রেমের দায়িত্বে ব্রতী, শ্যাম নারায়ণ চৌকসিকে এচোখেই দেখেছিলেন মাননীয় বিচারপতি দীপক মিশ্র ও এ. কে. শ্রীভাস্তাভের ডিভিশন বেঞ্চ। শ্যাম নারায়ণ চৌকসির অভিযোগের উত্তরে সেন্সর বোর্ড জানায়, ছাড়পত্র দেওয়ার আগে তারা উক্ত চলচ্চিত্রটি দেখেছিলেন, এবং, চলচ্চিত্রটিতে আপত্তিজনক কিছু পাননি। আর, চলচ্চিত্র চলাকালীন দর্শকদের উঠে দাঁড়ানর নির্দেশ দেওয়ার অধিকার যেহেতু সেন্সর বোর্ডের নেই, তাই, তাদের মতে, চলচ্চিত্রটি বিনা বাধায় চলতে দেওয়া উচিত। দর্শক উঠে দাঁড়াবে কিনা, তা দর্শকদের বিচার্য, সেন্সর বোর্ডের না। কিন্তু প্রশ্ন তো দেশের সম্মান রক্ষার, জাতীয় সংগীতের অপমান, আসলে তো দেশের অপমান। তাই এতো সহজে মেটেনি ব্যাপারটা। স্বল্প কোথায় বলতে গেলে, মামলার পুরো আলোচনা হয়েছিল, দুটি প্রশ্নের ওপর, এই চলচ্চিত্রে জাতীয় সংগীতের ব্যবহার দ্যাখানো যায় কিনা, এবং দ্যাখালে, দর্শকদের উঠে দাঁড়ানো বাধ্যতামূলক কিনা। বিচারের শেষে মাননীয় বিচারপতিদ্বয় রায় দেন যে, উক্ত চলচ্চিত্রে আর জাতীয় সংগীতের ব্যবহার দ্যাখানো যাবেনা, এবং, যতক্ষণনা অব্দি ওই দৃশ্য উক্ত চলচ্চিত্র থেকে বাদ দেওয়া হবে, ততক্ষন চলচ্চিত্রটি, কোনো প্রেক্ষাগৃহে, টিভি চ্যানেলে, ভিডিও ক্যাসেটে ও লোকাল কেবিলে দেখানো যাবেনা। প্রথম প্রশ্নের নেতিবাচক উত্তরের ফলে, দ্বিতীয় প্রশ্নটির উত্তর আর খোজ হয়নি।
চমকে না গিয়ে, উক্ত চলচ্চিত্রটি যেকোনো মাধ্যমে দেখুন, সেই দৃশ্য আজও সমান সম্মান সহকারে দেখানো হয়ে থাকে। কারণ, যথাযথ কারণে, মধ্যপ্রদেশ হাই কোর্টের ওই রায়কে, মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট, বাতিল করে দেয় এবং, উক্ত চলচ্চিত্রটি পুনরায় একই ভাবে চলবার অনুমতি পায়।
কিন্তু, চাকা ফিরে আসে, কপালের লিখন খণ্ডানো অসম্ভব, ইত্যাদি ইত্যাদি। তেরো বছর পরে, সুপ্রিম কোর্টে সেই একই শ্যাম নারায়ণ চৌকসির সাথে আবার দ্যাখা হয়ে যায়, মাননীয় বিচারপতি দীপক মিশ্রর। বিষয়ও আবার একই, জাতীয় সংগীতের অবমাননা। কাকতালীয়, নাকি, এক হাতে তালি বাজেনা, সে তর্কে না গিয়েও বলা যায়, ঘটনা হিসেবেই বিরল। তা সে যাই হোক, এবার আর কোনো নির্দিষ্ট চলচ্চিত্র নয়, অন্য কিছু ছোটোখাটো নাম-মাত্র আর্জির সাথে সাথে, সমস্ত প্রেক্ষাগৃহে বাধ্যতামূলকভাবে জাতীয় সংগীত প্রদর্শনের আর্জিও ছিল। মামলায় একমাত্র প্রতিপক্ষ হলো কেন্দ্রীয় সরকার। প্রথম শুনানির দিন, মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদ্বয় জাস্টিস দীপক মিশ্র ও অমিতাভ রায়ের ডিভিশন বেঞ্চ, সরকারের বক্তব্য শুনতে চায়, ও সেই মর্মে নির্দেশ দেয়। এর পরেই আসে তিরিশে নভেম্বর, ২০১৬।
তিরিশে নভেম্বর মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট রায় দিলো যে, (১) জাতীয় সংগীতের থেকে ব্যবসায়িক লাভ করা যাবেনা, (২) জাতীয় সংগীত নাটকীয় ভাবে প্রদর্শন করা যাবেনা, (৩) অসম্মান হতে পারে, এমন কোনো ভাবে জাতীয় সংগীত গাওয়া বা লেখা যাবেনা, (৪) ভারতবর্ষের সমস্ত প্রেক্ষাগৃহে চলচ্চিত্র শুরুর আগে বাধ্যতামূলকভাবে জাতীয় সংগীত চালাতে হবে, এবং, উপস্থিত দর্শকেরা উঠে দাঁড়াতে বাধিত থাকবে, (৫) জাতীয় সংগীত চলাকালীন যাতে কোনোরকম বাধা সৃষ্টি না হয় তাই প্রেক্ষাগৃহের দরজা বন্ধ থাকবে, (৬) জাতীয় সংগীত চলাকালীন পর্দায় জাতীয় পতাকার ছবি থাকবে আর, (৭) জাতীয় সংগীতের সংক্ষিপ্ত প্রয়োগ করা যাবেনা।
এই রায় দেয়ার আগে বা পরে মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট রায়ের স্বপক্ষে বিশেষ কোনো কারণ দর্শায়নি, বলেছে শুধু একটি কথা। এ দেশের প্রতিটা মানুষের দেশের প্রতি সম্মান দেখানো উচিত এবং, ব্যক্তিগত অধিকার সম্পর্কিত ভিন্নমতের চিন্তাভাবনার কোনো অবকাশ নেই। কেন্দ্রীয় সরকারের আইনজীবীরা মামলার বিষয়ে একটি কথাও না বলে, শুধু রায়টি কার্যকর করবার ব্যাপারে অঙ্গীকারবদ্ধ থেকেছে, আর কিভাবে তাড়াতাড়ি এই রায় কার্যকর করা যায় সেই নিয়ে বক্তব্য জানিয়েছে। এ প্রসঙ্গে আরো বলা উচিত, এটি একটি অন্তর্বর্তীকালীন রায়, যা দুহাজার সতেরো সালের ১৪ই ফেব্রুয়ারী অব্দি বলবৎ থাকবে।
অর্থাৎ, মামলার শুনানি শেষ হওয়ার আগেই, মামলার মূল আর্জি মেনে নেয়া হলো। এরকম হয়েই থাকে, যখন বাদী এবং বিবাদী দুপক্ষই মামলার মূল আর্জির ব্যাপারে সহমত পোষণ করে। বর্তমান পরিস্থিতে, কেন্দ্রীয় সরকারের থেকে, ভিন্ন কোনো আশা, ডান ও বাম নির্বিশেষে, আমাদের কারোরই নেই বলেই আমার বিশ্বাস।
শেষের পরেও একটা কিন্তু থেকে যায়। এই রায়ের মূল অংশে মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট বলেছে, "অল দি সিনেমা হলস ইন ইন্ডিয়া শ্যাল প্লে দি ন্যাশনাল এন্থেম বিফোর দি ফীচার ফিল্ম স্টার্টস এন্ড অল প্রেসেন্ট ইন দি হল আর অবলাইজড টু স্ট্যান্ড আপ টু শো রেস্পেক্ট টু দি ন্যাশনাল এন্থেম"। অর্থাৎ, একই বাক্যে একবার "শ্যাল" আর আরেকবার "অবলাইজড" ব্যবহার করেছে সুপ্রিম কোর্ট। প্রথমটি জাতীয় সংগীত প্রদর্শনের প্রেক্ষিতে এবং দ্বিতীয়টি জাতীয় সংগীত চলাকালীন উঠে দাঁড়ানোর প্রেক্ষিতে। এইখানেই প্রশ্ন থেকে যায়, মহামায় আদালতের কাছে যখন "শ্যাল", "ম্যান্ডাটরিলি", "হ্যাভ টু" জাতীয় নানান শব্দ ব্যবহারে কোনো বাধা ছিলোনা, তখন শুধু "অবলাইজড" কেন, যখন "অবলাইজেড" শব্দের আরো বিবিধ অর্থ যেকোনো অভিধানে সহজলভ্য !
"দি আনসার মাই ফ্রেন্ড ইস ব্লোউয়িং ইন দি উইন্ড, দি আনসার ইস ব্লোউয়িং ইন দি উইন্ড"।

তথ্যসূত্র :
১. AIR 2003 MP 233
২. Writ Petition(s)(Civil) No(s). 855/2016

সোমবার, ২৮ নভেম্বর, ২০১৬

যা জানলাম ~ আশুতোষ ভট্টাচার্য্য

​গত কয়েকদিনে ফেসবুকে যা জানলাম

1. ফিদেল কাস্ত্রোর কয়েক হাজার শয্যাসঙ্গিনী ছিল এবং উনাদের সাথেই তিনি দিন রাত্রি সারাজীবন অতিবাহিত করিতেন।উনার জাঙিয়ার রঙ ছিল লাল।
2. ফিদেল কাস্ত্রো আমেরিকার সৃষ্টি ও ভয়ঙ্কর অত্যাচারী শাসক ছিলেন।
3. ফিদেল কাস্ত্রো যে বেঁচে ছিলেন তা উনার মৃত্যুতে অনেকে জানলেন।(অনেকটা সেই কাদম্বিনী মরিয়া প্রমাণ করিল যে সে মরে নাই এর মত)।
4. লেনিন, স্তালিন, মাও, হো চি মিন,কাস্ত্রো,চে, জ্যোতি বসু,বুদ্ধবাবু,নামুদ্রিপাদ, হরকিশেন সিং, কারাত, ইয়েচুরি, মানিক সরকার ইত্যাদি বড় ছোট যাবতীয় কম্যুনিস্ট নেতা, মন্ত্রীরা শয়তান, মানে ভয়ঙ্কর শয়তান, এরা লুম্পেন,মুস্লিম শাসকদের মত অত্যাচারী,নারীলোলুপ।আর নাটের গুরু ছিলেন মার্ক্স, এঙ্গেলস কারন এদের উস্কানিতে দাস ক্যাপিটাল লেখা হয়েছিল যা কিনা বাইবেলের পর পৃথিবীর সর্বাধিক বিক্রীত( বিকৃত ও হতে পারে) পুস্তক।
5. চার নম্বরে উল্লেখিত লোকজন ছাড়া পৃথিবীর আর সব শাসকই কমবেশি ভাল, চরিত্রের দোষ নেই,বিড়ি সিগারেট,মদ টদ খান না( মুসলিম দেশগুলো এই তুলনা থেকে বাদ)।
6. মহা হারামি দেশ হল চিন কারন কম্যুনিস্ট,কিন্তু এক্ষুনি কিছু করার নেই এরা যা সস্তায় মাল দেয় তাই সরকারি অনেক কিছুর বরাত ওদের বস্তায় চলে যায়।
7. গণসংগীত পৃথিবীর সবচেয়ে অখাদ্য গান।এতে কোন সুর টুর নেই,ঘুরে ফিরে লাল সেলাম,লাল সেলাম বলে।
8. হিটলার সম্পর্কে যা কিছু বলা হয় তা অতিরঞ্জিত। তিনি ছিলেন বিশুদ্ধ আর্য ও স্তালিনের থেকে কম মানুষ মেরেছিলেন।
9. আমেরিকা একটি গনতান্ত্রিক দেশ, সেদেশে জনগনের কথা দেশের নেতারা শোনে, জনতা যদি যুদ্ধ বা বোম ফেলতে বারন করে তাই শোনে,ওদেশের যতজন প্রেসিডেন্ট আজ অব্দি এসছেন সবাই ভাল,আর ট্রাম্প তো একটু বেশিই ভাল।
10. আর প্রধানমন্ত্রী যদি বল এ বিশ্বে, এ গ্যালাক্সির,বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের সবচেয়ে ভাল, সবচেয়ে সাহসী, সবচেয়ে দূরদর্শী, সবচেয়ে ডাইনামিক হলেন মোদীজি।
11. গোবর মাখলে মোবাইলের ভয়ঙ্কর আলফা, বিটা, গামা তেজস্ক্রিয় বিকিরন থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।
12. প্লাস্টিক মানি চালু করে অবিলম্বে এই নোট সমস্যার আশু সমাধান করা উচিত।( এই আশু আমি নই, এই অর্থ শীঘ্র, এই শীঘ্র আবার পতন নয়)।

এরকমই বিভিন্ন জ্ঞানে রোজই নিজে সমৃদ্ধ হচ্ছি।ভাবছি একটা সঙ্কলন বানালে( এ আবার সেই রসেবশের সংকলন দা নয়) দেশের মূর্খ মানুষের অনেক সুবিধে হয়।

শুক্রবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৬

কালো টাকা ~ সুশোভন পাত্র

-কিতনে আদমি থে?
প্রশ্নটা আর গব্বর সিং'র ডেরায় রামগড়ে তোলা তুলতে ব্যর্থ চামচা'দের ইন্টারোগেশনে সীমাবদ্ধ নয়। প্রশ্নটা এখন নিকটবর্তী ব্যাঙ্কের সারিবদ্ধ সর্পিল লাইনের দৈর্ঘ্যের। প্রশ্নটা আম জনতার ধৈর্যের। অভ্যাস বশত গব্বর সিং আজও জিজ্ঞেস করেন "আরে ওহ সাম্বা, কিতনে ইনাম রাখে হে রে সরকার হাম পর।" কিন্তু 'পচাশ' তো দূর, সাম্বা আজকাল 'উইকলি লিমিট' হাজার চব্বিশের চার আনাও বাড়িয়ে বলতে সাহস করে না। আসলে সাম্বা বিলক্ষণ জানে, "ইহাসে পচাশ পচাশ কোশ দূর গাঁও মে, যব বাচ্চা রাত কো রোতা হ্যা" তখন মা'রা আর ঘুণাক্ষরেও বলে না "বেটা শো জা নেহি তো গব্বর আ জায়েগা।" বরং বলে "বেটা শো জা, আর নেহি তো কালকের জন্য ব্যাঙ্কের লাইনে গিয়ে দাঁড়াবি যা।" শুনে বাচ্চা তো বটেই, বাচ্চার বাবা'রাও নাকি আজকাল ঘুমিয়ে পড়ে।
প্রধানমন্ত্রীর খোয়াবনামা কালো টাকা উদ্ধার করবেন। জাল নোটের কারবারে লাগাম টানবেন। তাই নাটকীয় ঘোষণায় প্রটোকলের ঘোড়া ডিঙ্গিয়ে ফুটেজের ঘাস খেলেন। দু'দিনে মুশকিল আসানের আশ্বাস দিয়ে জাপান গেলেন। আর ফিরে এসে গোয়া'তে পঞ্চাশ দিনের অপেক্ষার 'মাস্টারস্ট্রোক' দিলেন। ভক্তরা খুশি। হবু ভক্তরা আরও খুশি। আর পানাম পেপার্সের দুর্নীতি তে নাম জড়িয়ে যাওয়া বলিউডের অতি ভক্তরা আরও আরও খুশি।
দেশ সুদ্ধু মানুষ সকালে ব্যাঙ্ক খোলার অপেক্ষা করছেন। কাজ ফেলে লাইনে দাঁড়াচ্ছেন। সামনের ভদ্রলোকের কনুইয়ের গোঁতা খাচ্ছেন। 'বিনা যুদ্ধে নাহি দিব সূচ্যগ্র মেদিনীর' জান কবুল মান কবুল লড়াই লড়ছেন। আর বিকেল তিনটের সময় কাউন্টারে গিয়ে জানতে পারছেন -ক্যাশ শেষ। আপনার রক্ত-ঘাম। আপনার অ্যাকাউন্ট। আপনারই অর্জিত টাকা। অথচ দিনের শেষে আপনারই পকেটটা ফাঁকা। কি ভাবছেন, সরকারের হাত শক্ত করে কালো টাকা উদ্ধারের বলশেভিক বিপ্লব করছেন? জাল নোট কারবার বন্ধ করতে অগ্নিযুদ্ধে নেমেছেন?  উইথ অল ডিউ রেসপেক্ট স্যার, আপনার সে গুড়ে কিন্তু বেজায় বালি।
২০১২'তে সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ডাইরেক্ট ট্যাক্সের চেয়ারম্যান'র নেতৃত্বাধীন উচ্চপদস্থ অফিসার'দের কমিটি 'ভারত ও বিদেশী কালো টাকা মোকাবিলার পথ' রিপোর্টে, অর্থমন্ত্রক কে জানায়, "৫০০ এবং ১০০০'র নোট বাতিল কালো টাকা মোকাবিলার কোনও পথই নয়। কালো টাকার বেশির ভাগটাই আজ বদলে ফেলা হয়েছে সম্পত্তিতে। তাছাড়া নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত ব্যাপক খরচা সাপেক্ষ, ব্যাঙ্ক পরিষেবার পক্ষে ক্ষতিকারক। মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাপন ও শ্রমিক-কর্মচারী'দের মজুরি প্রদানের ক্ষেত্রেও প্রভূত অসুবিধাজনক।"¹ এই রিপোর্টের সামঞ্জস্যেই আয়কর দপ্তরের তথ্যানুসারে গত আর্থিক বছরেও 'লিকুইড ক্যাশে' কালো টাকার পরিমাণ ৬%। ² আর রিজার্ভ ব্যাঙ্কের রিপোর্টে  অনুযায়ী দেশে সার্কুলেটেড নোটে জাল নোটের পরিমাণ বর্তমানে .০০০০০৭%। ³ তাই ডিয়ার দাদা এবং বৌদি... সিটব্যাক অ্যান্ড রিল্যাক্স। অযথা ভাবাবেগে ভাসবেন না। বাস্তবের মাটিতে পা রাখুন। দেশে কালো টাকা উদ্ধার হবে, জাল নোটের কারবার বন্ধ হবে -বেশ তো। কিন্তু পরিকাঠামোগত পর্যাপ্ত ব্যবস্থার অভাবে ভোগান্তিটা যখন আপনারই, হিসেবটাও তখন কড়ায় গণ্ডায় আপনিই বুঝে নিন। আপনার কাঁধে বন্দুক রেখে রাজনৈতিক প্রচারের বুলেট কারা চালাচ্ছেন সেটাও একটু জেনে নিন। আপনার 'আত্মত্যাগের' আড়ালে কোনও নেপো'রা বেমালুম দই মেরে যাচ্ছে একটু চিনে নিন।   
হনুমান ছাপ শুদ্ধ দেশী রামভক্ত'দের জিজ্ঞাসা করুন, এন.ডি.এ ক্ষমতায় এসেই আর্থিক বছরে বিদেশের ব্যাঙ্কে টাকা পাঠানোর উচ্চসীমা ৭৫,০০০ ডলার থেকে ২৫০,০০০ ডলার করলো কাদের স্বার্থে? ⁴ গত ১১ মাসে এই স্কিমে স্বাভাবিকের তিনগুণ হারে ৩০,০০০ কোটি টাকা বিদেশের ব্যাঙ্কে জমাই বা পড়লো কোন দেশভক্ত'দের?⁵ বন্দর নির্মাণে পরিবেশ বিধিভঙ্গের দায়ে আদানি গোষ্ঠীর ২০০ কোটির জরিমানা গত জুলাই মাসে মাফ করলো কোন সরকার?⁶ স্টেট ব্যাঙ্ক ইন্ডিয়ার খাতা থেকে শোধ না হওয়া ৭ হাজার কোটির বেশি ঋণ মোছা হল কার হুকুমে? ইচ্ছাকৃত ভাবে ঋণ শোধ না করা ৬৩টি সংস্থাকে ছাড় দেওয়া হল কোন তেলো মাথায় তেল ঢালতে? আচ্ছা, বিজয় মাল্যর কিংফিশার এয়ারলাইন্সের অনাদায়ী ১২০১.১৯ কোটির ঋণও মোকুব হবে আর আপনাকে ব্যাঙ্কের লাইনে দাঁড় করিয়ে দেশের কালো টাকা উদ্ধার হবে -এমন পরস্পর বিপরীতধর্মী পাটিগণিত মিলে যাবে কেশব নাগের কোন জাদুতে?⁷
জনাব প্রধানমন্ত্রী, আপনিই বলুন কোনটা সাদা, কোনটা কালো? ২০১৪'র আগে বি.জে.পি'র সর্বভারতীয় মুখপাত্র মীনাক্ষী লেখি সাংবাদিক সম্মেলনে যেদিন  ইউ.পি.এ কে তুলোধোনা করে বলেছিলেন 'ডিমনিটাইজেশনের সিদ্ধান্ত গরীব বিরোধী', সেটা; না আজকে আপনি যে বলছেন, 'এই সিদ্ধান্তে খুশি হয়ে নিশ্চিন্তে ঘুমোচ্ছে গরীবরা', সেটা?⁸ নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত নাকি বড় লোকদের 'তেতো ওষুধ', সেটা; না বিজেপির বিধায়ক ভবানী সিং রাজওয়াতের কথায় এই সিদ্ধান্ত নাকি আগাম জানতেন আম্বানি-আদানি'রা, সেটা?⁹ কালো কে জনাব? ব্যাঙ্কের  লাইনে দাঁড়িয়ে মেয়ের বিয়ের টাকা জোগাড় করতে না পেরে হার্ট অ্যাটাকে মারা গেলেন রাজস্থানের যে ৬২ বছরের প্রৌঢ়, সে; না কর্ণাটকের যে বিজেপি বিধায়কের মেয়ের বিয়েতে খরচা হল ৫৫০ কোটি, সে?¹⁰ সত্যি কোনটা? অর্থমন্ত্রীর কথা মত, সিদ্ধান্ত নাকি দশ মাস আগের পূর্ব পরিকল্পিত, বিপর্যয় মোকাবিলার সমস্ত ব্যবস্থাও প্রত্যাশার থেকেও অগ্রিম সম্পাদিত, সেটা; না সরকারের অপরিণামদর্শিতায় দেশ জুড়ে ন'দিনেই শহীদ হলেন ৫৫ জন, সেটা?¹¹
জনাব প্রধানমন্ত্রী, হোক না সাদা-কালোর সাচ্চা একটা হিসেবে নিকেশ। হোক না সেটা ইতিহাসের পাতায় গিয়ে। হোক না সেটা 'চ্যারিটি বিগনস অ্যাট হোম' দিয়ে। সমস্ত রাজনৈতিক দলের হাজার-কোটির আয়ের উৎসের সাচ্চা একটা তদন্ত চেয়ে। নির্বাচনী প্রচারে কোটি টাকার কর্পোরেট ডোনেশেনের হিসেব কষে। আদানি'দের চার্টার্ড বিমানের ঘুরে বেড়ানোর সাচ্চা বিলের রশিদ নিয়ে। জিও-পে'টিমের পাতা জোড়া বিজ্ঞাপনে মুখ দেখানোর শোকোজ চেয়ে। ভুখা দেশের প্রধানমন্ত্রীর দশ লাখি স্যুটের জবাব খুঁজে। হোক না সাদা-কালোর সাচ্চা একটা হিসেবে নিকেশ সমস্ত লজ্জার মাথা খেয়ে। জরা হাম ভি তো দেখে, আমাদের মাথায় চেপে আজ ইচ্ছেমত ছড়ি ঘোরাচ্ছে যারা, আসলে তাঁদের সাদা কে, আর কালোই বা কারা?

রাষ্ট্রায়ত্ত ৪৭টা লাশ ~ অবিন দত্তগুপ্ত

যখন এ লেখা লিখছি , তখন রাষ্ট্রায়ত্ত লাশের সংখ্যা ৪৭ । ৫০০-১০০০ এর দেশপ্রেমিক অন্তর্ধান-এর জন্য আপাতত মারা গেছেন ৪৭ জন মানুষ । ৪৭ জন মানুষ ,যাদের বিভিন্ন নাম - বিভিন্ন ভাষা - বিভিন্ন ধর্ম - বিভিন্ন জাত । ৪৭ জন মানুষ ,যাদের প্রত্যেকের শ্রেণী এক । তারা নিম্নবিত্ত , হ্যাভ নট্‌স । এ লেখার কোন অর্থনৈতিক ধার ও ভার নেই । এ লেখা শুধুই ওই ৪৭-এর শ্রেণীকে কুর্নিশ জানানো একটা প্রিভিলেজ্‌ড্‌ হিজিবিজি । এ লেখা ৪৭-এর শ্রেণীর প্রতি হাল্কা অভিমান নিয়ে বলা কয়েকটা কথা মাত্র । সংখ্যা অদ্ভুত । ৪৭ । মুক্তি-পরাধীনতা-আশা-আশাভঙ্গের সঙ্খ্যা । 
যেদিন প্রথম ৫০০-১০০০ বন্ধের নির্দেশ এলো , তার পরেরদিন-ই আমি বাজারের দিকে গেছিলাম । আমার পরিচিত এক ফুল-আলি আছেন বাঘাযতীন বাজারে , তার সাথেই কথা হচ্ছিল । টাকা নিয়ে চুড়ান্ত কনফিউশনে ,ওনার সেদিন একটাও মালা বিক্রি হয় নি । রাতে কি খাবেন , কাল কি করে ফুল কিনবেন , কিনলেও বিক্রী হবে কিনা জানেন না । উনি আমায় বলেছিলেন , "মাত্র এক দুদিনের কষ্ট । যা হচ্ছে, আমাদের জন্যই তো হচ্ছে । দুদিন পরে সব ঠিক হয়ে যাবে , সবাই বলছে । তার পর জিনিসপত্রের দাম কমে যাবে , বড়লোকের টাকা কমবে , আমরা ভালো ভাবে বাঁচতে পারবো । মাত্র দুদিন , আমার ছেলেটাও আজ জন খাটতে পারলুনি দাদা , তাতে কি ! মা-ব্যাটায় আধ পেটা খেয়ে দুদিন ঠিক টেনে দেবো । এমন তো কতো দিন-ই গেছে । তারপর সব ঠিক হয়ে যাবে । "
আজ নিয়ে প্রায় তিনদিন হয়ে গেলো , উনি আর বাজারে বসছেন না । ৪৭ এর আশা । ৪৭ এর আশাভঙ্গ । 
এর পর পর থেকেই বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে বিভিন্ন খবর পেতে থাকি । ডায়মন্ডহারবারের কাছে মাছ-এর পাইকারি বিক্রীর একটি বিশাল বাজার আছে । ট্রলার গুলো মাছ ধরে সরাসরি এখানে নিয়ে আসে ,এবং এখান থেকেই ছোট বা খুচরো ব্যবসায়ীরা সেই মাছ কিনে নেন । ওই বিশাল বাজারটা গতকাল বন্ধ হয়ে গেছে । কেন ? প্রশ্নের উত্তর পেলাম ,আমারি এক মালায়ালি বন্ধুর কাছে । সমুদ্রের পারে বাড়ি তার । জানাচ্ছে তার অভিজ্ঞতাও আমার-ই মতো । জেলেরা যে মাছ ধরে আনে ,সেটা কেনার মতো ক্যাশ টাকা খুচরো বিক্রেতাদের বা পাইকারি বিক্রেতাদের নেই । তাই বেশীর ভাগ মাছ পচে যাচ্ছে । এ সম্পর্কে প্রথম যখন সে খবর সংগ্রহ করতে গিয়েছিল ,তখন কেরালার জেলেদের বক্তব্য-ও ,বাঘাযতীনের ফুল-ওয়ালি দিদার মতো ছিল । তারাও ভেবেছিলেন , এক দিন দু দিনের ব্যাপার । দেশের জন্য এটূকু তারা করতেই পারেন । গত আটদিনে কজন জেলে আত্মহত্যা করেছেন, এ খবর জানা নেই । 
একই অভিজ্ঞতা আপনাদের সকলের হয়েছে । ক্ষেতে কাজ করতে যাওয়া ভাগ চাষি থেকে সেলুনে রোজের হিসেবে কাজ করা নাপিত , তারা প্রত্যেকে নিজেদের ভাগের অনেকটা ছেড়ে দিতে চেয়েছে স্বেচ্ছায় ,অনেক কষ্ট সহ্য করে ,আধপেটা খেয়ে । তারা এটা করেছে ,কারণ তাদের শ্রেণী চরিত্র তাদের বিশ্বাস করতে শিখিয়েছে । তাদের কাছে দ্যাশ কোন ভুখন্ড নয় । দেশ মানে তাদের মতোই মানুষ । ৪৭এর একান্নবর্তী পরিবার । তারা বিশ্বাস করতে চেয়েছে ,এবার অন্তত তাদের দেশকে তারাই নিয়ন্ত্রন করবে । বিশ্বাস করতে চেয়েছে ,বড়লোকের অনৈতিক ঐশ্বর্যের থেকে তাদের প্রাপ্য ভাগ এবার তাদের কপালে জুটবে । তাই তারা সহ্য করেছে । এই কোটি কোটি সাধারণ নামহীন মানুষের অনন্ত সহ্যশক্তির নাম ভারতবর্ষ । মা যেমন নতুন সন্তানের জন্মের সময় ব্যথা সহ্য করে , এরাও তেমন সহ্য করেছে । কিন্তু প্রতিবার মৃত-বিকৃত মাংসের দলা ছাড়া কিছুই প্রসব করতে পারে নি । মুক্তির যন্ত্রণা সহ্য করেছে , বদলে ইনাম জুটেছে আরও বেশী বন্দিত্ব । 
এখানেই শেষ হয়ে যেতে পারতো । কিন্তু ৪৭-এর শ্রেণী চরিত্র শুধুই সহ্যের গল্পকথা নয় । ঘৃণাও তার একটি মুল বৈশিষ্ট বৈকি । বড়লোকদের প্রতি ,তাদের অন্যায় ভাবে অর্জিত সম্পদের প্রতি ঘৃণা । যারা তাদের মানুষের মতো বাঁচতে দেয় না , তাদের বৈভবের প্রতি ঘৃণা । যারা তাদের ভুল বুঝিয়েছে - মিথ্যে বলেছে - সেই দালালদের প্রতি ঘৃণা । শ্রেণী ঘৃণা । যে সময় মজুরি না পেয়ে ৪৭ ধুকছে ,আস্তে আস্তে কবর আর চিতার দিকে এগোচ্ছে - সে সময় তারা খবর পেলো এক দালালের মেয়ের বিয়ে হয়েছে পাঁচশো কোটি টাকা খরচ করে । তারা খবর পেলো , দু তিন দিন ভুয়া কথা - কদ্দিন লাগবে কেউ ঠিকঠাক জানে না । তাদের কুর্বানির বিনিময় জিনিসপত্রের দাম যখন কমলো না , তাদের কষ্টার্জিত সেভিংসে যখন ইন্টারেস্ট রেট কমতে আরম্ভ করলো ... ৪৭ জন মারা যাবার পর যখন তাদেরি মতো ৪৭ কোটি দেখতে পেলো একটাও বড়লোকের একটা চুলেও কোন আঁচর পরেনি , তখন তারা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে । ফুটপাথের উপর ভারী হাতে ভর দিয়ে আস্তে আস্তে উঠে দাঁড়ায় । তারা ভীরু - তারাই বীর । এরপর তারা ধ্বংশ করে । তারপর তারাই সৃষ্টি করে । আকাশের পাখির মতো - সমুদ্রের মাছের মতো তারা অগণিত । 
আমি আজ আবার বাজার গিয়েছিলাম । পাড়ার সেলুনে ,মুচির দোকানে । আমাদের পাড়ায় যে ছেলেটা একশো দিনের কাজ করে তার সাথেও কথা হয়েছে । একটা নিঃশব্দ ঘৃণা । প্রতারিত হওয়ার যন্ত্রণা তাদের চোখে । মধ্যপ্রদেশে কারা যেন রাগে ফেটে পড়েছে । কেরালা - তামিলনাডুতে আগুন জ্বলছে । প্রতারিত ৪৭-রা , প্রত্যেকটি লাশের হিসেব বুঝতে চাইছে । আর জানলায় নয় । রাস্তায় আগুন লক্‌ লক্‌ করে জ্বলছে ।

রবিবার, ১৩ নভেম্বর, ২০১৬

কালো টাকা ~ সুশোভন পাত্র

আইজাক স্যার বলেছেন, 'বাইরের থেকে বল প্রয়োগ না করলে, স্থির বস্তু চিরকাল স্থির এবং গতিশীল বস্তু চিরকাল গতিশীল থাকবে'। আর বাজারে না খাটিয়ে, ব্যবসা তে না লাগিয়ে ঘরে পুঁতে কিম্বা তোয়ালা মুড়ে লুকিয়ে রাখলে কালো টাকাও চিরকাল কালোই থাকবে। স্থিরই থাকবে। ধারে, ভারে তো বাড়বেই না, বরং মুদ্রাস্ফীতির কালগর্ভে আজকের ষোলআনা দু'দিন পরে বারো আনা হয়েও আপনার কপালে নাচতে পারে। আজ থেকে দেড়শো বছর আগে অর্থনীতির এই মৌলিক সত্যটা অনুধাবন করেই ঐ দাড়িওয়ালা বুড়োটা লিখেছিলেন, 'পুঁজিবাদী সমাজে পুঁজি জমিয়ে নয় বরং বাজারে খাটিয়েই মুনফা লাভ হয়।' এই জন্যই দেশের কালো টাকার বেশির ভাগটা আজ সিনেমার চিত্রনাট্যের শেষ দৃশ্যের রহস্য উন্মোচনের জন্য কোন ভিলেনের ঘরের নিচে লোকানো নেই। বরং আছে একেবারে আপনার চোখের সামনে। আছে রিয়েল এস্টেট বিজনেসের ইটে, আছে সিমেন্ট গাঁথা অট্টালিকা সেজে, আছে নিউক্লিয়ার ডিলের আস্থা ভোটে বিরোধী সাংসদ কিনে সরকার বাঁচিয়ে রাখার তাগিদে, আছে বাংলার মানুষের নির্বাচিত পঞ্চায়েত ভেঙ্গে দেবার শাসক দলের ব্রহ্মাস্ত্র হয়ে, আছে নেত্রীর আঁকা ছবি ১ কোটি ৮৬ লক্ষ টাকার বিনিময়ে পার্টি তহবিলে পৌঁছে দেবার কৌশল হয়ে, আর আছে 'হাওলা'র মত কতশত চ্যানেলে ঘুরে বিদেশের ব্যাঙ্কে জমা হয়ে।  

কালো টাকা মানে শুধু লুকানো টাকার জমে থাকা ভাণ্ডার নয়। কালো টাকা মানে যেকোনো কর ফাঁকি। কালো টাকা মানে যেকোনো অনুমোদিত সীমার বাইরে লেনদেন। ঐ যে মেজিয়ার কয়লা খাদানে ১০০টন কয়লা তুলে খাতায় কলমে ৮০টনের হিসেব দেখালেন -কালো টাকা। পুলিশ কে ঘুষ দিয়ে নদী থেকে দু গাড়ি বালি বেশী তুললেন -কালো টাকা। কালীঘাটের জাগ্রত দেবী কে সন্তুষ্ট রাখতে ভাইদের তোলা দিলেন -কালো টাকা। পার্টি ফান্ডের ১লক্ষর অনুদানে কুড়ি হাজারের রশিদ কাটলেন –ওটাও কালো টাকা। আসলে কালো টাকায় কোন কালো দাগ নেই, আইডেন্টিটি ফিকেশন মার্ক নেই। তাই আপনি হয়ত কালো টাকা দেখছেন প্রতিদিন, হাতেও নিচ্ছেন প্রতিদিন, কিন্তু চিনতে পারছেন না।

আনুমানিক ভাবে, ওয়ার্ল্ড ব্যাঙ্ক রিপোর্ট এবং কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রকের ৮ তারিখের প্রেস বিবৃতি অনুসারে দেশের মোট কালো টাকা পরিমাণ দেশের জি.ডি.পি'র এক চতুর্থাংশের সমান। অর্থাৎ ২০১৫'র পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশের জি.ডি.পি যদি হয় ১২৬.৫ ট্রিলিয়ন, তাহলে ঐ সরল ত্রৈরাশিকেই কালো টাকা ৩৫ লক্ষ কোটি। এখন রিজার্ভ ব্যাঙ্কের ২০১৫-১৬'র বার্ষিক রিপোর্ট অনুযায়ী বাজারে নগদ ৫০০ টাকার নোট রয়েছে ১৬৫০ কোটি। আর ১০০০ টাকার নোট ৬৭০ কোটি। যার সম্মিলিত অর্থমূল্য ১৭ লক্ষ কোটির একটু বেশী। সেই টাকারও এক চতুর্থাংশ কালো টাকা ধরে সহজ হিসেবে কষলে, এই নোট বাতিল করার সিদ্ধান্তে সর্বোচ্চ ৪ লক্ষ ২৫ হাজার কোটির কালো টাকা উদ্ধার হতে পারে। আবার ৫০০ বা ১০০০ টাকার নোটের মাধ্যমে বাজার থেকে তুলে নেওয়া অর্থের সম পরিমাণ অর্থ ২০০০ টাকার বা ৫০০ টাকার নতুন নোট ছেপে বদলে ফেলার খরচাও প্রায় ১২ হাজার কোটি। সুতরাং, সবের ধন নীলমণি হয়ে পড়ে রইলো আনুমানিক ৪ লক্ষ ১৩ হাজার কোটি। যা দেশের মোট কালো টাকার মাত্র ১৩%। বাকি ৮৭% কিন্তু যেমন ছিল তেমনই রইলো। রইলো ২৯টি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কে বৃহৎ কর্পোরেট'দের বকেয়া ১.১৪ লক্ষ কোটি টাকার অনাদায়ী ঋণে, রইলো রেভেনিউ ফোরগেনে'র নামে প্রতিবছর বিগ বিজনেস হাউসগুলোকে ছাড় দেওয়া কর্পোরেট ট্যাক্সে, রইলো আর্থিক কারচুপি করে লন্ডনে বসে থাকা বিজয় মালিয়া, ললিত মোদী'দের পকেটে, আর রইলো সুইস ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টে।  

এই সত্যিটা প্রধানমন্ত্রীও বিলক্ষণ জানেন। আর জানেন বলেই, ২০১৩'তে গোয়ার বিলাসবহুল হোটেলে বিজেপি'র পার্লামেন্টারি বোর্ডের মিটিং-এ প্রধানমন্ত্রী পদের মনোনয়ন পেয়েই তিনি টুইট করেছিলেন "দেশের একটা বাচ্চা ছেলেও জানে কালো টাকা আছে সুইস ব্যাঙ্কে। আমাদের কি সেটা ফিরিয়ে আনা উচিত নয়?" প্রধানমন্ত্রী বিলক্ষণ এটাও জানেন যে শুধু নোট বাতিলের সিদ্ধান্তে সেই সুইস ব্যাঙ্কের এক ছটাক টাকাও দেশে ফিরে আসবে না। দীর্ঘসময়ের প্রেক্ষাপটে কালো টাকার রমরমাও ম্লান হবে না। আসলে নোট বাতিল তো ১৯৪৬'এ কিম্বা ১৯৭৮'র জানুয়ারি'তেও হয়েছিল। কিন্তু কালো টাকা'র এই বাড়বাড়ন্ত থামেনি। বরং অর্থনীতির বেহাল অবস্থার খেসারৎ চুকিয়ে পরের সাধারণ নির্বাচনে গো-হারা হয়েছিলো মুরাজি দেশাই'র জনতা সরকার।  

তবুও বেশ হয়েছে নোট গুলো সব বাতিল হয়েছে। আমাদের দু-একদিনের কষ্টে যদি দেশের প্রাসাদসম কালো টাকার কিঞ্চিতও ফিরে আসে, তাহলে না হয় তাই আচ্ছা। গোরু তে ৮০% মানুষের জিন খোঁজা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একদিন যদি জাল নোটের ব্যাপারীদের খুঁজতে বসেন, তাহলে তাই আচ্ছা। 'মন্দির ওহি বানায়েঙ্গে'র চ্যাংড়ামি করা হিন্দু নেতা, আর তিন তালাকের সমর্থনে ভাষণবাজি করা মৌলবি গুলো যদি একদিন ব্যাঙ্কের লাইনে গা ঘেঁষে রিকুইসিট ফর্ম ভরেন, তো তাই আচ্ছা। অ্যালিস্টার কুকের টিমের বিরুদ্ধে জালিয়ানওয়ালাবাগের প্রতিশোধে উদ্যত গোটা দেশবাসী একদিন যদি রাজনৈতিক দল গুলোর আয়ের উৎস জানতে চেয়ে বসে, তাহলে তাই আচ্ছা। কৃষ্ণের অষ্টোত্তর শত নামজপা ছেড়ে একদিন যদি নিতাই মেলায় অর্থনীতির তর্কের তুফান ওঠে, তো তাই আচ্ছা। কালো টাকার 'হ্যাভ আর হ্যাভ নটসে' দেশটা যদি একদিন আড়াআড়ি ভেঙ্গে পড়ে, তাহলে তাই আচ্ছা। মানুষ যদি ভাবতে শেখে ধর্মের বিভেদ নয় তাঁদের এক সুতোয় বেঁধেছে তাঁদেরই পেটের খিদে, তাহলে তাই আচ্ছা। এই সংখ্যালঘু শাসকদের সঙ্গে সংখ্যাগুরু শোষিত মানুষ গুলোর একদিন...একদিন যদি 'ভীষণ রাগে যুদ্ধ বাঁধে', তাহলে না হয় তাই আচ্ছা। সেদিন নাজিবরা আর ২৮ দিন ধরে নিখোঁজ থাকবেনা সেনোরিটা, সেদিন হয়ত নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের প্যানিকে প্রত্যন্ত গ্রামের তীর্থরাজিরা আর মরবে না সেনোরিটা , সেদিন হয়ত "বড়ে বড়ে দেশো ম্যা অ্যাসি ছোটি ছোটি বাত" আর একটাও হবে না সেনোরিটা…

শুক্রবার, ১১ নভেম্বর, ২০১৬

সব অসুবিধাই দু'দিনের ~ প্রকল্প ভট্টাচার্য্য

​সক্কলকে ধন্যবাদ। গত দুইদিনে আমার নতুন একটা শিক্ষালাভ হলো।
"সব অসুবিধাই দু'দিনের। মুখ বুজে মেনে নিতে হয়। বৃহত্তর সামগ্রিক উন্নয়ন (ধরে নিচ্ছি হবে)-এর স্বার্থে।"
ডায়মণ্ড হারবার রোডে নাকি বহু বছর ধরে খোঁড়াখুঁড়ি চলছে? নাঃ, কিছু বলিনি।
"সব অসুবিধাই দু'দিনের। মুখ বুজে মেনে নিতে হয়। বৃহত্তর সামগ্রিক উন্নয়ন (ধরে নিচ্ছি হবে)-এর স্বার্থে।"
পুজোর সময় মাইকের দৌরাত্ম! চাঁদার জুলুম! উফফ! না, আমি চুপ।
"সব অসুবিধাই দু'দিনের। মুখ বুজে মেনে নিতে হয়। বৃহত্তর সামগ্রিক উন্নয়ন (ধরে নিচ্ছি হবে)-এর স্বার্থে।"
বৃষ্টিতে জল জমে শহরের অবস্থা শোচনীয়। চলাফেরা বন্ধ, খাওয়াদাওয়া অনিশ্চিত। শাট আপ!
"সব অসুবিধাই দু'দিনের। মুখ বুজে মেনে নিতে হয়। বৃহত্তর সামগ্রিক উন্নয়ন (ধরে নিচ্ছি হবে)-এর স্বার্থে।"
পেট্রলের দাম বাড়ল আবার। সব জিনিষেরই। কীভাবে যে... শশশশশ!
"সব অসুবিধাই দু'দিনের। মুখ বুজে মেনে নিতে হয়। বৃহত্তর সামগ্রিক উন্নয়ন (ধরে নিচ্ছি হবে)-এর স্বার্থে।"
যুদ্ধের পরিস্থিতি ঘনিয়ে আসছে যে! চ্যোপ!!
"সব অসুবিধাই দু'দিনের। মুখ বুজে মেনে নিতে হয়। বৃহত্তর সামগ্রিক উন্নয়ন (ধরে নিচ্ছি হবে)-এর স্বার্থে।অরাজকতা? বিশৃঙ্খলা? অসুস্থতা? অসহায়তা? মেনে নিন সকলে। একদম চুপচাপ।
"সব অসুবিধাই দু'দিনের। মুখ বুজে মেনে নিতে হয়। বৃহত্তর সামগ্রিক উন্নয়ন (ধরে নিচ্ছি হবে)-এর স্বার্থে।"
-----------------
যারা আমাকে এই জ্ঞান দিলেন, তাদের সবাইকে ধন্যবাদ। আমি নিশ্চিত এবার তাঁরাও আর কখনো "উফফ, কী করি!" পোস্ট করবেন না। কারণ, "সব অসুবিধাই দু'দিনের। মুখ বুজে মেনে নিতে হয়। বৃহত্তর সামগ্রিক উন্নয়ন (ধরে নিচ্ছি হবে)-এর স্বার্থে।"

বুধবার, ৯ নভেম্বর, ২০১৬

কবি ~ শমীক মুখার্জী

কিশোর রবি জোড়াসাঁকো হইতে নির্গত হইলেন। হাওড়া হইতে এখন ট্রেন যায়, পঁহুছানো অসুবিধা হইবে না। মূলরাস্তার নিকটে আসিতেই একটি তোবড়ানো মিনিবাস "পোস্তা-হাওড়া-হাওড়া-হাওড়া" কহিতে কহিতে আসিয়া দাঁড়াইল। সাবধানে আপনার চোগা-চাপকান সামলাইয়া পাদানিতে অর্ধেক ঝুলিয়া দাঁড়াইলেন কিশোর রবি। মিনিবাস ছুটিল হাওড়া ইস্টিশনের দিকে।

অন্যদিন এই সময়ে কিশোর রবির মনে খেলা করিয়া যায় গানের কথামালা, গুঞ্জরিয়া যায় সুরের ভ্রমর। আজ আর সে সব দিকে রবির ভ্রূক্ষেপমাত্র নাই, নতুন বৌঠান দুটি ক্ষীরকদম্ব খাইয়া যাইতে বলিয়াছিলেন, রবি দৃক্‌পাত করেন নাই, সবেগে নিষ্ক্রান্ত হইয়াছেন ঘর হইতে। ... বাবামশায়, যে বাবামশায়কে তিনি এত সন্মান করেন, ঈশ্বরতুল্য মনে করেন, সেই বাবামশায় তাঁহার সঙ্গে এমনটি করিলেন?

ব্যান্ডেল লোকালে আনমনে বসিয়া আছেন রবি। ঝালমুড়ি এবং কচি শসা বিক্রেতারা বহুবার তাঁহার কর্ণের নিকটে বহুবিধ স্বরে তাহাদিগের পসরার গুণগান করিয়া গেল, রবির তাহাতে ভাবান্তর ঘটিল না।

বিকেল তিনটার কিছু পূর্ব্বে রবি চুঁচুড়ায় আসিলেন। একটি রিক্সা লইয়া সটান উপস্থিত হইলেন গঙ্গাতীরবর্তী বাগানবাড়িতে। বাবামশায় আজকাল এইখানেই দিন অতিবাহিত করিতেছেন। একটু পরেই তাঁহার উপাসনার সময় হইবে, তাহার পূর্ব্বেই তাঁহার সহিত সাক্ষাৎ প্রয়োজন।

মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ তখন বারান্দায় বসিয়া একটি সদ্য শোনা সঙ্গীত গুণগুণ করিতেছিলেন। নয়ন তোমারে পায় না দেখিতে, রয়েছো নয়নে নয়নে। তাঁহার এই পুত্র সত্যই প্রতিভাবান। রবি তাঁহার নাড়ির টান, এইবারে গ্রীষ্মে তাহাকে সঙ্গে লইয়া তিনি কার্শিয়াং যাইবেন।

সহসা ধ্যানভঙ্গ হইল মহর্ষির। দরোজার সামনে দাঁড়াইয়া আছে, ও কে? রবি না? রবি, বাবা, কখন এলে? খবর দিয়া আসো নাই তো?

রবি মনে মনে অনেক রোষকষায়িত বাক্যবাণ প্রস্তুত করিয়া আসিয়াছিলেন, কিন্তু আচম্বিতে বাবামশায়ের সম্মুখে দাঁড়াইয়া তাঁহার সমস্ত তেজ উবিয়া গেল, পরিণত হইল অভিমানে। চক্ষের কোণে আসিল জলের বিন্দু। পায়ে পায়ে আগাইয়া গেলেন বাবামশায়ের সম্মুখে।

"কেন, বাবামশায়, কেন? ... দেশের রাজা না হয় এ ভাষা বুঝেন না, আপনি তো বুঝেছিলেন, তবে কেন জেনেশুনে আমাকে এই পাঁচশো টাকার নোট দিয়াছিলেন? গত তিন দিন ধরে সারা কলকাতা ঘুরেছি, কেউ নেয় নি, কেউ নিতে চায় নি। বলছে, কালো টাকা। না হয় না-ই দিতেন, আপনার স্নেহই আমার জন্য যথেষ্ট ছিল ..."

গলা বুজিয়া আসিল কিশোর রবির। থরথর হাতে চোগার পকেট থেকে একটি পাঁচশো টাকার নোট তিনি আগাইয়া ধরিলেন মহর্ষির দিকে। মহর্ষি স্তম্ভিত হইয়া দাঁড়াইয়া রহিলেন। নির্জনে এই বাড়িতে তিনি সাধন ভজন করেন, এনডিটিভি দ্যাখেন না। দেশের রাজা যে এত কিছু করিয়া ফেলিয়াছেন, তিনি জানিবেন কেমন ভাবে?

গঙ্গাবক্ষে শীতল হাওয়া দীর্ঘশ্বাস ফেলিয়া ছুটিয়া গেল নৈহাটির দিকে।

শুক্রবার, ৪ নভেম্বর, ২০১৬

মুক্ত বাজার অর্থনীতি ~ সুশোভন পাত্র

অফিস ফেরত মোড়ের ট্রাফিক'টায় আজকাল প্রায়ই মিনিট দশেক আটকে থাকতে হয়। রাস্তায় তখন ব্যস্ত মানুষের স্রোত, রেড লাইটার গা ঘেঁষে বহুজাতিকের আকাশছোঁয়া বিজ্ঞাপন, দুপাশে গাড়ির কর্কশ হর্ন, ফ্লাই ওভারে আধুনিক সভ্যতার সাক্ষ্য গায়ে মেখে ছুটে চলা পর্যাবৃত্ত মেট্রো, আর শীর্ণ, দীর্ণ কয়েকটা ভিক্ষাজীবীর অসহায়তা। এসবের মধ্যেই সেদিন হঠাৎ খেয়াল করলাম আকাশে উড়ে যাচ্ছে একদল পাখি। দিল্লীর এই চুলোতে এ'দৃশ্য বিরল বৈকি। চাইলে এখানে মাথার উপরে হাফডজন উড়োজাহাজ দেখতে পাওয়া যায়, প্রাসাদসম ফ্ল্যাট গুলোর মাথায় মোবাইল টাওয়ারের টিমটিম করা লালবাতি গুলোকে শনাক্ত করা যায়, চিমনির একরাশ কালো ধোঁয়ারও হদিশ পাওয়া যায়, কিন্তু রাতের আকাশের কালপুরুষটা খুঁজে পাওয়া যায় না, তর্জনীর ডগা দিয়ে লাইন টেনে সপ্তর্ষিমণ্ডলটা মিলিয়ে নেওয়া যায় না, ডানা ঝাপটে নীল আকাশের বুক চিরে উড়ে যাওয়া পাখির দলের অনাবিল হর্ষধ্বনি শুনতে পাওয়া যায় না। আসলে আমাদের মত O₃, SO₂ NO₂, মাইক্রোমিটারের পার্টিকুলেট ম্যাটার কিম্বা অ্যারোডাইনামিক্সের বিজ্ঞানটা না বুঝলেও, দিল্লীর  নিকৃষ্টতম বাতাসে প্রতিমুহূর্তের জরুরী নিঃশ্বাস'টাও যে প্রবল বিপজ্জনক পাখিরা সেটা বোঝে। বোধহয় আমাদের থেকে একটু বেশীই বোঝে।দীপাবলির পর গত পাঁচদিন আর একটাও রৌদ্রকরোজ্জ্বল সকাল দেখেনি দিল্লী। C.S.E'র ডিপাৰ্টমেন্ট জানিয়েছে এই বুধবার সতেরো বছরের জঘন্যতম 'স্মগে' ডুবে ছিল দিল্লী। এপ্রিলে হু, বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত বায়ু বয়ে বেড়ানোর ভয়ঙ্কর পরিণতি সম্পর্কে সাবধান করেছে দিল্লী কে।'এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সে'র মাপকাঠিতে বছরে নাকি মাত্র দু'দিন, বুকভরা শ্বাস নেওয়ার মত 'দূষণ মুক্ত' বাতাসের সৌভাগ্য হয় দিল্লীর। তবুও নিশ্চিন্ত, নির্বিকার এই জাহাঁবাজ দিল্লী। আমার যে পরিবেশ সচেতন কলিগ সেদিন বাতাসে CO₂ মিশে যাবার আশঙ্কায় হোটাসঅ্যাপে চিনের সামগ্রী বয়কটের আবেদন জানালেন, সোমবার তিনিই বুক ফুলিয়ে ঘোষণা করলেন "ইস বার চালিশ হাজার কা পটাকা ফোড়া।" আসলে  বয়কটের আবেদনটা পরিবেশ রক্ষার্থে ছিল না। আবেদনটা ছিল উগ্র জাতীয়তাবাদের হিড়িক তুলতে। আসন্ন অল ইম্পরট্যান্ট তিন বিধানসভা নির্বাচনের আগে দেশপ্রেম জাহিরের আগুনে খেলায় ফার্স্ট ইনিংসে লিড নিতে। আফসোস শুধু একটাই, আমাদের মাথার উপরের আকাশটা, আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে থাকা বাতাসটা, এই জাতীয়তাবাদটা বোঝে না, কাঁটাতারে আবদ্ধ দেশপ্রেমের গণ্ডী গুলো চেনে না, জিও পলিটিক্সের জটিল অঙ্ক গুলো কষতে জানে না, তাই চিনের CO₂ আর ভারতের CO₂ তে দূষণের পার্থক্যটাও করতে পারে না।
শুধু আপনার নিঃশ্বাস নেওয়া বাতাসের কম্পোজিশনটাই নয়, বদলে যাচ্ছে আপনার বৃষ্টি মাথায় ফুটবল খেলার অমলিন শৈশবটা, বদলে যাচ্ছে আপনার পাড়া মাথায় তোলা চায়ের দোকানের আড্ডাটা, বিকেলের মা বৌদি'দের পুকুর পাড়ের চেনা ছবিটা, ঘুমনোর আগে গল্পের বই পড়ার আপনার নিখাদ অভ্যাসটা। আসলে বিশ্বায়নের নামে বদলে যাচ্ছে আপনার আশেপাশের গোটা সমাজটাই। পরিবেশে দূষণের মাত্রার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আপনার শয্যাশায়ী মায়ের ওষুধের খরচা, ছেলের কলেজের ফিস, মেয়ের কসমেটিকসের দাম, আপনার মাসকাবারি ছাপোষা ফর্দের দৈর্ঘ্যটা আর মুকেশ আম্বানির মোট সম্পত্তির পরিমাণটা। বর্তমানে যে সম্পত্তির পরিমাণ ২৩.১ বিলিয়ন ডলার। অঙ্কটা আপনার দেশের ১৪টা রাজ্যের, আর বিশ্বের ১৯টা দেশের জিডিপি'র থেকে একটু বেশী। ২০১৩-২০১৫'র আর্থিক বছরে ২৯টি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কে বৃহৎ কর্পোরেট'দের বকেয়া মোট অনাদায়ী ঋণের পরিমাণ ১.১৪ লক্ষ কোটি টাকা। অঙ্কটা আপনার রোমান্টিক হানিমুনের নিশ্চিন্ত ডেসটিনেশন, ঐ  নর্থ ইস্টের স্টেট গুলোর সম্মিলিত জিডিপি'র থেকেও একটু বেশি। প্রথম ১৫ জন ধনী ব্যক্তির সম্মিলিত সম্পত্তির অঙ্কটা আজ দেশের অর্ধেক জনসংখ্যার সম্মিলিত সম্পত্তির থেকে একটু বেশি। আর এই প্রবল আর্থিক বৈষম্যের পরেও অর্থমন্ত্রী তাঁর প্রেয়সী যে অর্থনীতির প্রশংসা করে সন্ধেবেলার সাংবাদিক বৈঠকে নিয়ম করে 'ফিলগুড ফ্যাক্টর' বিলিয়ে দেন তার নাম 'মুক্ত বাজার অর্থনীতি।' এই মুক্ত বাজার জাতি, রাষ্ট্রের পরিসর বোঝেনা। এই মুক্তবাজার বোঝে ডিমান্ড সাপ্লাই রেশিও। বোঝে লো কস্ট প্রোডাকশনের প্রফিট। বোঝে কনজিউমার সারপ্লাসের অঙ্ক। এবং বোঝে বলেই চিনের অর্থনীতির ঠাণ্ডা লাগলে ভারতের বাজারে হাঁচি হয়। বোঝে বলেই গোটা বিশ্বে চিনের পণ্য রমরমিয়ে বিক্রি হয়।
আচ্ছা, লেবার ব্যুরো রিপোর্টে যে দেশের বর্তমানে বেকারত্বর হার শেষ ৫ বছরের সর্বোচ্চ, যে দেশের ম্যানুফ্যাকচারিং গ্রোথ মুখ থুবড়ে পড়ছে প্রতি কোয়ার্টারে, যে দেশের আটটি শ্রম নিবিড় শিল্পে গত আর্থিক বছরে কর্মসংস্থান হয়েছে মাত্র ১.৭৫ লক্ষ; একটা হোটাসঅ্যাপ ম্যাসেজ পাঠিয়ে সে দেশের অর্থনীতি উদ্ধার করার কষ্টকল্পনা আপনার বালখিল্যতা মনে হয় না? অরে মশাই, মুক্ত বাজারের ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইন তৈরি করা আমেরিকাও চিনের পণ্যের আমদানি রোধে চড়া হারে শুল্ক ধার্য করেছে। এবং এতদসত্ত্বেও চিনের সাথে বর্তমানে আমেরিকার ট্রেড ডেফিসিটের অঙ্কটা স্টেগারিং, অঙ্কটা ৩৪৩ বিলিয়ন ডলার।  
অর্থনীতি'তে 'স্বদেশী' ফ্ল্যাবারের দর্শন আমদানির জন্য সংঘের লোকজন দীনদয়াল উপাধ্যায় কে খুব মান্যি যত্ন করেন।প্রধানমন্ত্রী আদর্শগত আনতির জন্য তাঁর নামে যোজনার নামকরণে শ্রদ্ধা তর্পণ করেন, মেক ইন ইন্ডিয়া, স্কিল ইন্ডিয়ার গাল গপ্পো পাড়েন। আর বিজেপি'র ক্যাবিনেট, রুদ্ধদ্বার বৈঠকে সেই 'স্বদেশীয়ানা'র পিণ্ডি চটকে, আপনার জীবনদায়ী ওষুধে ৭৪% আর প্রতিরক্ষা তে ১০০% এফ.ডি.আই'র বিল পাশ করে, আমেরিকার সাথে লজিস্টিক এক্সচেঞ্জের চুক্তি সাক্ষর করে। হিন্দুত্বের আঁতুড়ঘরের গুজরাত সরকার যখন নর্মদার ধারে চিনা ব্রোঞ্জ দিয়ে সর্দার প্যাটেলের মূর্তি গড়ে, সংঘের হেডকোয়ার্টার নাগপুরের মেট্রোতে যখন চিনের কোম্পানি কোচ তৈরির রমরমা ব্যবসা করে, দেশভক্তির সাক্ষাৎ অবতার স্বয়ং মোহন ভাগবতও তখন তাঁর জাতীয়তাবাদী লেজ গুটিয়ে মৌনব্রত পালন করেন। ডিয়ার গোমাতার বাধ্য সন্তানদল, আপনাদের রাজনৈতিক গডফাদার'রাই যখন বাড়ি বয়ে মুক্ত বাজার অর্থনীতির দালালি করেন তখন আপনারা কেন খামকা উগ্র দেশপ্রেমের আমাশয় ভোগেন? মুক্ত বাজারের সাম্রাজ্যে তো এটাই ডায়নামিক্স। মুক্ত বাজার সাম্রাজ্যে এটাই তো নিয়ম। আর এ সাম্রাজ্যের আপাতত চিনই সম্রাট।   টেক ইট অর লিভ ইট…

মঙ্গলবার, ১ নভেম্বর, ২০১৬

আর জন্মের দুষ্টু লোক - সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়

- সবার আগে আপনার যেটা দরকার মেজর মিত্র, সেটা হলো রেস্ট, কেননা আপনার এই হ্যালুসিনেশন বলুন, স্বপ্ন বলুন এগুলো যদি বাড়তে থাকে তাহলে ইট উইল আ্যাফেক্ট ইয়োর...
- হার্ট। জানি ডক্টর। কিন্তু এই মুহুর্তে আমাকে হার্ট স্পেশালিস্টের চেয়ে অনেক বেশী সাহায্য করতে পারেন একজন সাইক্রিয়াট্রিস্ট, তাই আপনার কাছে...
- দেখুন মেজর, এই যে ছবিতে এই জায়গাটা দেখছেন, এটাকে বলে হিপ্পোক্যাম্পালজাইরাস, এটা আমাদের মেমরি সেন্টর..
- ডক্টর, প্লিজ। এগুলো টেকনিকাল কথা। আমার... আমার ভাল লাগছেনা.. আপনি জানেন না কি চলছে আমার ভেতরে... আমি কি সেরে উঠবো ডক্টর....?
- দেখুন....মেজর.... রিকনসিলিয়েশন একটা উপায় হতে পারে... আগের জন্মের যে জায়গা গুলোর স্মৃতি ফিরে আসছে, সে জায়গা গুলো ভিজিট করলে হয়ত....
- উফফ ডক্টর...  ডক্টর.... ওখান থেকেই..... সেই থেকেই শুরু...
- কোথায়?
- আখনৌর। জম্মুর কাছে। এই বছর খানেক আগে। আমার পোস্টিং হলো ওখানে
- তার পর? তার আগে আগের জন্মের স্মৃতি কি....?
- না না। তার আগে কিচ্ছু ছিলো না.... জানেন.... কিন্তু প্রথম বার বর্ডার পেট্রোলে গিয়েই...
- আপনি জলটা খান মেজর....
- মনে হলো খুব চেনা জায়গা জানেন। আমার পেট্রোলে যাবার কথা নয়। আমার র‍্যাঙ্কের অফিসারেরা যায়না। কিন্তু আমায় কেমন নেশায় পেয়ে বসল ডক্টর...
- তার পর?
- তার পর থেকেই পর্দার মত স্মৃতির লেয়ার গুলো খুলে যেতে লাগল। স্পষ্ট হতে লাগল...
- দেখুন মেজর, ইট ক্যান বি এ কেস অফ দ্বৈত সত্তা। তবে আস্তে আস্তে কোনো একটা সত্ত্বা আর মেমরি ডমিন্যান্ট হয়ে যেতে থাকে
- সেটাই তো ভয় ডক্টর
- কিন্তু আপনি তো বলছেন আগের জন্মের স্মৃতিতেও আপনি সৈনিক
- হ্যাঁ ডক্টর। সৈনিক। ওই পরিবেশ, উর্দী, কম্যান্ড, ডিসিপ্লিন... মনে হতো আমার বহু কালের চেনা...
- কিছু ঘটনা মনে পড়ছে?
- পড়ছে। সেই আখনৌর সেক্টরেই। সেটা ছিল সেপ্টেম্বর। যুদ্ধ শুরু হলো...
- সেপ্টেম্বর? তার মানে সিক্সটি ফাইভ.... 
- আর সেখানেই ট্যাঙ্কের সামনে দাঁড়িয়ে আমার ইউনিট নিয়ে দিনভোর লড়ে গেলাম। ট্যাঙ্ক আটকে রাখলাম... হুকুম ছিল যেন দুষমনের ট্যাঙ্ক এক পা ও না এগোয়
- তার পর?
- ভোরের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে দুষমন ভারী আর্টিলারি ফায়ার শুরু করল... উফফফফ
- আর ইউ ওকে মেজর??
- ওহ ইয়েস ডক্টর। আমার পা দুটো উড়ে গিয়েছিল। তখনো জ্ঞান ছিল। কিন্তু আস্তে আস্তে সব ঝাপসা। ওখানেই আমি...
- মারা যান। বুঝেছি মেজর। দেশরক্ষার জন্য প্রান দেওয়া। বড় গৌরবের। আপনার কি সেই মৃত্যুভয় ফিরে আসছে?
- আপনি বুঝতে পারছেন না ডক্টর। একটু আগে বললেন না, দ্বৈত সত্ত্বা, যে কোনো একটা ডমিন্যান্ট হয়ে যায় আস্তে আস্তে...
- হ্যাঁ, কিন্তু আপনি তো আগের জন্মেও আর্মিতেই ছিলেন। অসুবিধে কোথায়?

- আর্মিতেই ছিলাম ডক্টর। মেজর সওকত ওসমান। পাকিস্তান আর্মি।

বৃহস্পতিবার, ২৭ অক্টোবর, ২০১৬

রাতভোর ~ সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়

- আপনি গাঁজা খান স্যার?
-
কেন তোর আপত্তি আছে?
- না স্যার, আমার আর আপত্তি থাকার কি আছে? তবে বড় বিচ্ছিরি গন্ধ
- তুই আমার ছাত্রী, তোর বলার একটা রাইট তো আছেই তবে সে সময় এখন নয়
- বকলেন?
- মোটেই না রাত ১২ টার পর ছাত্রীদের বকতে নেই
- খিক খিক …… আপনার নেশা হয়েছে
- হয়েছে, তবে গাঁজার নয় ঝিম ধরা মধ্যরাতের নেশা গাঁজার থেকে অনেক স্ট্রং
- আপনাকে অদ্ভুত লাগে স্যার মাঝে মাঝে আপনার কথা কিছু বুঝতে পারিনা 
- তাহলে রাত তিনটের সময় না ঘুমিয়ে বাংলার প্রোফেসরের পাশে বালির ওপর বসে আছিস কেন?
- ভাল লাগছে স্যার কি সুন্দর ! শহরের ভিড়ভাট্টা নেই, আওয়াজ নেই, হুড়োহুড়ি নেই
- হুঁ সবাই সেটাই বলে বটে
- আপনি কতজনের সঙ্গে এরকম বসে থেকেছেন স্যার মাঝ রাতে , সমুদ্রের ধারে?
- বেশী না, তবে হাঁটুর বয়সি কারুর সঙ্গে এই প্রথম
- আপনার হাঁটুর বয়স কত ?
- ডেঁপোমি করিসনা
- এতই যদি ইয়ে আমি , তো কেন বসে আছেন আমার সঙ্গে? আমি যাই ঘুমোতে এখনো কেউ কেন নোটিশ করেনি আমি বাইরে, সেটাই বুঝতে পারছিনা
- বোস
- কেন?
- আমি বলেছি বলে
- আপনি বলেছেন তাই বসব?
- তোদের ম্যাডাম নাক ডাকিয়ে ঘুমোচ্ছে এখন ঢুকতে গেলে উঠে পড়ে ঝামেলা করবে
- ম্যাডাম ঝামেলা করবে বলে বসতে বললেন?
- এত বক বক করিস কেন বল তো?
- আমি যাচ্ছি
- বোস
- কেন?
- তুই থাকলে ভাল লাগে
- কেমন ভাল? আমি কে?
- তুই আমার ছাত্রী তোর সঙ্গ আমার ভাল লাগে
- হেঁয়ালী ছাড়ুন
- মন দিয়ে শোন মেয়েদের একটা সহজাত বোধ থাকে, যেটা দিয়ে তারা পুরুষকে বুঝে নিতে পারেআর
- আর?
- জেন্টলম্যানরা জানে তাদের কোথায় থামা উচিত
- আপনি জেন্টলম্যান?
- অন্ততঃ হবার ইচ্ছেটা রাখি
- যদি না হতে পারেন? না হতে চান?
- নষ্ট হয়ে যাবে রে, সব নষ্ট হয়ে যাবে
- কি নষ্ট হবে স্যার?
- ওই দেখ, দিকে দেখছিস? আকাশ ফর্সা হচ্ছে একটু একটু করেরঙ ধরছে?
-   মাকি সুন্দর স্যার? রঙটা দেখছেন? কি অপূর্ব !! উফ আমি কখনো দেখিনি স্যার!! দারুন

- নিজের লিমিট না জানলে, এইদারুনএর স্মৃতিটাই তেতো হয়ে যাবে বুঝলি পাগলি? সব সুন্দরকে ধরতে যেতে নেই…